কঠিন সমস্যায় বাংলাদেশ দল!

এশিয়া কাপের সুপার ফোরে ইতোমধ্যে কোয়ালিফাই করেছে বাংলাদেশ দল। নিয়ম রক্ষার ম্যাচে আগামীকাল আফগানিস্তানের বিপক্ষে লড়তে হবে বাংলাদেশকে। দুই দলই পেয়েছে একটি করে জয় তবে নেট রান রেটে এগিয়ে আছে বাংলাদেশে। যদি বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় সেক্ষেত্রে কঠিন সমস্যায় পড়তে হতে পারে বাংলাদেশকে।

দুর্দান্ত জয়ে এশিয়া কাপ শুরু বাংলাদেশের।

নিয়ম রক্ষার ম্যাচে কোন বাড়তি সুবিধা নেই বাংলাদেশের জন্য। তবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলেই বিপদ বাড়বে বাংলাদেশের জন্য। আফগানদের বিপক্ষে জয় পেলে আবুধাবিতে ম্যাচ খেলতে আবার উড়াল দেওয়া লাগবে দুবাইয়ের উদ্দেশে। পরেরদিন আবারো আসতে হবে আবুধাবিতে। তবে রানার্স-আপ হলে তেমন বিপদ নেই বাংলাদেশের।

২১ সেপ্টেম্বর দুবাইতে সুপার ফোরের ম্যাচ খেলে একদিন বিরতি দিয়ে আবার দুবাইতে খেলতে হবে দলকে। এই নিয়ে মধুর সমস্যায় বাংলাদেশ। দুবাই থেক আবুধাবির দূরত্ব ১৪০ কিমি। বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফিও জানিয়েছেন এই সমস্যার কথা। কিন্তু তাই বলে আগামীকাল ম্যাচকে হালকাভাবে নিচ্ছেন না তিনি। সেই সাথে এই ম্যাচে ইনজুরিতে থাকা ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দেওয়ার কথাও চিন্তা করছে তারা।

Also Read - তরুণদের নিয়ে আশাবাদী মাশরাফি

“আমরা অবশ্যই এটা নিয়ে চিন্তা করছি। এই ম্যাচ তেমন গুরুত্ব বহন করে না সেটা ঠিক কিন্তু আপনি অন্যভাবে চিন্তা করলে দেখবেন এটা একটা আন্তর্জাতিক ম্যাচ। এই ম্যাচের কোন মূল্য নেই, ঐভাবে চিন্তা করলেও অস্থির লাগে। মূল্য অবশ্যই আছে কিন্তু টুর্নামেন্টের দিকে যদি তাকান তাহলে দেখবেন দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে এই ম্যাচ তেমন ভাবে কোন হেল্প করবে না। সবচেয়ে বড় সমস্যা যেটা, দ্বিতীয় রাউন্ডে যেসব গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হবে সেগুলো পরপর খেলতে হচ্ছে।”

এইদিকে এশিয়া কাপে বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জিং বিষয় সেখানকার গরম। এই আবহাওয়ায় বোলিংয়ে বেশি সমস্যা হয় পেসারদের। আফগানদের বিপক্ষে পেসারদের চেয়ে স্পিনাররা কী একটু দায়িত্ব নিতে পারবে কিনা সে প্রশ্ন মাশরাফিকে করা হলে উত্তরে তিনি জানান,

“অবস্থার উপর তো অনেক কিছু নির্ভর করে। আপনি ম্যাচ খেলতে নেমে যদি ঐ সময় পেস বোলারকে দিয়ে বল করানোর প্রয়োজন হয় তাহলে তো করাই লাগবে। আমাদের হাতে দ্বিতীয় কোন অপশনও নেই। আগেও বলেছি, এটা তো আমাদের হাতে নেই। পরপর দুইটা ম্যাচ খেলতে হবে। অবশ্যই এই ম্যাচের (আফগানিস্তান) মূল্য অনেক অন্যদিকে আপনি যদি এশিয়া কাপের শেষ পর্যন্ত যেতে চান তাহলে ২১ তারিখের ম্যাচ আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ।”

আরও পড়ুনঃ তরুণদের নিয়ে আশাবাদী মাশরাফি

Related Articles

এই মিরাজ অনেক আত্মবিশ্বাসী

মিঠুনের ‘মূল চরিত্রে’ আসার তাড়না

‘আঙুলটা আর কখনো পুরোপুরি ঠিক হবে না’

এক নয় মাশরাফির তিন ইনজুরি

‘বিশ্ব ক্রিকেটে সম্মানজনক জায়গা আদায় করেছে বাংলাদেশ’