Scores

গাজী গ্রুপের ছয়ে ছয়

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে যেন অদম্য হয়ে উঠেছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। তাদের জয়রথ থামাতে পারছে না কেউ। ছয় ম্যাচের ছয়টিতেই জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে এনামুল-নাদিফরা।

বিকেএসপির চার নং মাঠে পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাবকে চার উইকেটে হারিয়েছে গাজী গ্রুপ। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে পারটেক্সের সূচনাটা হয়েছিল দুরন্ত। দুই ওপেনার জনি তালুকদার ও জাতিন সাক্সেনা উদ্বোধনী জুটিতে সংগ্রহ করেন ৬৫ রান। ২৭ বলে ৩৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে হোসেন আলির শিকার হন জনি।

এক বল পরেই সাজ্জাদ হোসেনকে বোল্ড করেন হোসেন আলি। এক ওভারে দুই উইকেট তুলে নিয়ে পারটেক্সের ওপর চাপ সৃষ্টি করে গাজী গ্রুপ। এরপর অর্ধশতকের জুটি গড়ে চাপ সামলান সাক্সেনা ও ইরফান শুক্কুর। ৫২ বলে ৬১ রানের ইনিংস খেলে নাঈম ইসলামের বলে বোল্ড হন সাক্সেনা। সাক্সেনার বিদায়ের পর রানের চাকায় নিয়ন্ত্রণ আনে গাজী গ্রুপ। ৩২ বলে ১৩ রান করে আউট হন শাহানুর। ৭৭ বলে ৬৯ রানের ইনিংস খেলে ইরফান শিকার হন মেহেদি হাসানের। দলীয় ১৮৫ রানের মাথায় ইরফানের বিদায় ছিল পঞ্চম উইকেটের পতন।

Also Read - রবির শতকে খেলাঘরের জয়



আরো পড়ুনঃ রবির শতকে খেলাঘরের জয়


ষষ্ঠ উইকেটে জুবায়ের আহমেদ ও জাকারিয়া মাসুদ ৩৮ রান তুলেন। ৪৩ বলে ২৫ রান করে আলাউদ্দিন বাবুর বলে জহুরুলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান জুবায়ের। সাজ্জাদুল হক ও নুরুজ্জামান মাসুম দ্রুত ফিরে যান। নবম উইকেট জুটিতে রাজীবুল ইসলামকে সাথে নিয়ে ৩৯ রান যোগ করেন জাকারিয়া। ইনিংসের শেষ বলে আবু হায়দারের বলে আউট হন রাজীবুল। তবে ২ চার ও ১ ছক্কায় ১৪ বলে ২৩ রানের সময়োপযগী ইনিংস খেলেন তিনি। ৩ চারে ৩৩ রান করে অপরাজিত থাকেন জাকারিয়া।

গাজী গ্রুপের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৭১। শুরু থেকে সঠিক পথেই হাঁটে গাজী গ্রুপ। ইনিংসের সূচনা করতে নেমে এনামুল হক বিজয় এবং জহুরুল ইসলাম ৬৮ রানের জুটি গড়েন। ৩৬ রান করে জাকারিয়ার বলে সাজ্জাদের হাতে ক্যাচ দেন বিজয়।

এরপর মোমিনুলকে নিয়ে ৪৯ রানের জুটি গড়েন জহুরুল ইসলাম। মোমিনুল থিতু হলেও বড় স্কোর গড়তে পারেননি। ২৩ বলে ২৬ রান করে রাজিবুলের বলে আউট হন তিনি। সোহরাওয়ার্দী শুভকে নিয়ে জহুরুল আরো ৭৪ রান যোগ করলে শক্ত অবস্থানে চলে যায় গাজী গ্রুপ। এ জুটি ম্যাচ থেকে ছিটকে দেয় পারটেক্সকে। ৩৪ রানের ইনিংস খেলে দলীয় ১৯১ রানের মাথায় আউট হন শুভ।

অর্ধশতক পার করে শতকের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন জহুরুল ইসলাম। কিন্তু ৯৬ রান করে পায়ের চোট নিয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। চার রানের আক্ষেপ রয়ে যায় তার। মেহেদি হাসান ও আলাউদ্দিন বাবু দ্রুত ফিরে গেলে কিছুটা চাপে পড়ে গাজী গ্রুপ।

ফারুক যখন ব্যাটিংয়ে নামেন, গাজী গ্রুপের চাই ২৯ বলে ৩৬ রান। ২ টি চার ও ২ টি ছক্কার সাহায্যে ১৩ বলে ২৯ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন ফারুক। ফারুকের ইনিংসে ভর করে ৬ বল হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় গাজী গ্রুপ।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ পারটেক্স ২৭০/৯, ৫০ ওভার
ইরফান ৬৯, জাতিন ৬১, জনি ৩৪
হোসেন ২/২১, আবু হায়দার ২/৬৪

গাজী গ্রুপ ২৭১/৬, ৪৯ ওভার
জহুরুল ৯৬ (রিটায়ার্ড হার্ট), বিজয় ৩৬, শুভ ৩৪
রাজিবুল ২/৩৯, জুবায়ের ২/৩২

-আজমল তানজীম সাকির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম ডট কম 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

চার অধিনায়কের ম্যাচে শেষ হাসি তামিমের

ডিপিএলে রিয়াদের বোলিং ঝলক

বাড়তি দায়িত্বের ভার টের পাচ্ছেন সৌম্য

বড় দলের ‘বড় চ্যালেঞ্জ’ টের পাচ্ছেন আকবর

প্রাইম ব্যাংকের কাছে হেরে বিদায় নিল গাজী গ্রুপ