জেলা দলে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বিতর্ক, মুখ খুললেন নাসুম

0
1956

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচ জিতিয়ে তিনি যখন নায়ক, তখনই দানা বাঁধল বিতর্ক। নাসুম আহমেদ সিলেট নাকি সুনামগঞ্জ জেলার ক্রিকেটার, এ নিয়ে রীতিমত দুই জেলার ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের মধ্যে চলে নীরব যুদ্ধ। অবশেষে মুখ খুলেছেন নাসুম। নিজেকে পরিচয় দিয়েছেন সিলেটেই বেড়ে ওঠা ক্রিকেটার হিসেবে।

গত ম্যাচে খুব বাজে বোলিংয়ের পর চিন্তিত ছিলাম : নাসুম
নাসুম আহমেদ। ফাইল ছবি

বিতর্কের শুরু ‘নাসুম সুনামগঞ্জ জেলা দলে নিষিদ্ধ’- এমন খবরে। যদিও নাসুমের দাবি, তিনি কখনও সুনামগঞ্জ জেলা দলের হয়ে খেলেননি এবং খেলার সুযোগও ছিল না। কারণ ততদিনে নিজ জেলা সিলেটের দলে থিতু হয়ে গেছেন তিনি।

Advertisment

বিতর্কের অবসান ঘটিয়ে নাসুম বলেন, “আমার জন্ম, বড় হওয়া, পড়ালেখা কিংবা ক্রিকেট খেলা, সবকিছুই সিলেটে। আমার বাবার জন্মও সিলেটে। একসময় আমার দাদাবাড়ি সুনামগঞ্জ জেলায় ছিল। কিন্তু আমার দাদা ১৯৫৮ সালে সিলেটে স্থায়ীভাবে চলে আসেন। ছোটবেলা সুনামগঞ্জে একবার গিয়েছিলাম এবং রাস্তাঘাটও ঠিকভাবে চিনি না ওখানকার। পরবর্তীতে ওখানকার একটা টুর্নামেন্টে একবার ‘খ্যাপ’ খেলতে গিয়েছিলাম।”

এই ভাড়ায় খেলতে যাওয়াতেই ইতি নাসুমের ক্রিকেটীয় জীবনের সুনামগঞ্জ জেলা অধ্যায়ের। সিলেট জেলা ও বিভাগীয় দলে খেলে জাতীয় দলে উঠে আসা নাসুম আরও বলেন, “সম্প্রতি বিভিন্ন সংবাদে হয়তো অনেকে বিভ্রান্ত হয়েছেন আমি আমার জেলা দলে নিষিদ্ধ। কিন্তু আমি যে জেলার হয়ে কখনও খেলিনি তারা আমাকে কীভাবে নিষিদ্ধ করে?”

“২০০৫ সালে ১১ বছর বয়সে আমি পেশাগতভাবে ক্রিকেট শুরু করি এবং ঐ বছর জেলা ক্রিকেটে সুনামগঞ্জের কোনো দলই ছিল না। তখন থেকে সবসময়ই সিলেটের হয়ে খেলেছি। সিলেট লিগে খেলেছি ২০০৬ সাল থেকে। সিলেট জেলা দলে খেলেছি ৩ বছর, আর বিভাগীয় দলে ২০১০ সাল থেকে”- বলেন নাসুম।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।