জয়ের কৃতিত্ব সাইফ ও মেহেদীকে দিলেন সাকিব

0
2994

ওমানের বিপক্ষে বাকি বোলাররা যখন বেশি রান দিচ্ছিলেন, তখন কিপটে বোলিং করে বাংলাদেশের পক্ষে ম্যাচের বাঁক ঘুরিয়ে দেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও শেখ মেহেদী হাসান। সাকিব আল হাসানের মতে এই বোলারই বাংলাদেশের জয়ের সন্ধিক্ষণ এনে দিয়েছেন।

জয়ের কৃতিত্ব সাইফ ও মেহেদীকে দিলেন সাকিব
বাংলাদেশ

তাসকিন আহমেদ ও মুস্তাফিজুর রহমানের প্রথম দুই ওভারে ১২ রান করে ইনিংসের প্রথম দুই ওভারেই ২৪ রান সংগ্রহ করে ফেলেছিল ওমান। তখনই সাইফ বোলিংয়ে এসে রান থামানোর চেষ্টা করেন। একইভাবে ওমানের লাগাম টেনে ধরেন মেহেদীও। শুরুতে সাকিব আল হাসানও ছিলেন বেশ খরুচে। পাওয়ারপ্লের ৬ ওভারে ওমান সংগ্রহ করেছিল ৪৭ রান।

Advertisment

মুস্তাফিজ চার ওভারে ৩৬ রান, সাকিব চার ওভারে ২৮ ও তাসকিন চার ওভারে ৩১ রান খরচ করেন। এই তিন বোলারের ওমান ভালোই রান তুলতে পারলেও হোঁচট খায় সাইফ ও মেহেদীর বলে। চার ওভারে সাইফ খরচ করেন ১৬ রান। মেহেদী তো আরও নিয়ন্ত্রিত বোলিং করেন। তার চার ওভারে ওমান সংগ্রহ করে ১৪ রান। অর্থাৎ সাইফ ও মেহেদীর আট ওভারে আসে কেবল ৩০ রান। বাংলাদেশ ম্যাচ জিতেছে ২৬ রানে

সাইফ ও মেহেদী যদি নিয়ন্ত্রিত বোলিং করতে না পারতেন, তাহলে হয়ত ম্যাচটি বাংলাদেশের হাত থেকে বের হয়ে যেতে পারত। তাই এই দুই বোলারকেই জয়ের কৃতিত্ব দিলেন ম্যাচসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়া সাকিব।

সাকিব বলেন, “সাইফউদ্দিন ও মেহেদী খুবই ভালো বল করেছে। বলতে পারেন ওরাই আমাদের আজকের জয়ের সন্ধিক্ষণ এনে দিয়েছে। ওদের ৮ ওভারে হয়ত ৩০ রানও হয়নি। এটা সামনের দিকে এগিয়ে নিয়েছে। তাদের কৃতিত্ব দিতেই হয়।”

পরিস্থিতির সাথে বোলাররা সখ্যতা গড়ে তুলেছেন বলে জানান সাকিব, “গত ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ১০ ওভারে ৮৬ রান প্রয়োজন ছিল আমাদের। আজ আমাদের বিপক্ষে ওমানের প্রয়োজন ছিল ৮৪ রান। আমরা জানতাম, এই কন্ডিশনে এটা কোনোভাবেই সহজ কাজ নয়। বোলাররা ভালোভাবে মানিয়ে নিয়েছে এই কন্ডিশনে, এটারই সুফল পেয়েছি।”

ঘরের মাঠে সর্বশেষ দুইটি টি-টোয়েন্টি সিরিজে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি স্পিনার ছিলেন নাসুম আহমেদ। কিন্তু বিশ্বকাপের প্রথম দুই ম্যাচে একাদশেই সুযোগ পাননি তিনি। তবে কে খেলছে বা কে খেলছে না- এসব না ভেবে দলের জয়ে ভূমিকা রাখার দিকে সবার নজর আছে মন্তব্য করেন সাকিব।

বাংলাদেশ বনাম ওমান, আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ
বাংলাদেশ

সাকিবের ভাষ্যমতে, “কাকে খেলালে বা কাকে না খেলালে ভালো হয় এটা টিম ম্যানেজমেন্ট চিন্তা করতে পারে। আমার কাছে মনে হয়, দলে যে ১৫-১৬ জন আছি তারা সবাই দলের জয়ে ভূমিকা রাখার যোগ্যতা রাখে। সবাই হয়ত পারফর্ম করতে পারে না। যেদিন যার সুযোগ আসবে, সে যেন দলকে জেতানোর চেষ্টা করে।”

প্রসঙ্গত, গ্রুপ পর্বে স্কটল্যান্ডের কাছে প্রথম ম্যাচ হারের পরে ওমানের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতে এখন বাংলাদেশের পয়েন্ট ২। পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে ওমানের সমান ২ পয়েন্ট, তবে রানরেটে এগিয়ে ওমান দুইয়ে এবং বাংলাদেশ তিনে অবস্থান করছে। অপরদিকে, বাংলাদেশ ও পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে শীর্ষে আছে স্কটল্যান্ড

গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচটি পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে। আগামী ১৯ অক্টোবর ওমানে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচটি।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।