টি-টোয়েন্টিতে পর্যাপ্ত সুযোগ পেয়েছিলেন জুনায়েদ সিদ্দিকী?

0
2784

দেশের ক্রিকেটে পারফর্ম না করতে পেরে দল থেকে বাদ পড়া আর তারপর একেবারেই হারিয়ে যাওয়া ক্রিকেটার অনেক আছেন। জুনায়েদ সিদ্দিকীও সেই তালিকারই একজন ক্রিকেটার।

মিজানুর জুনায়েদ ব্রাদার্স ডিপিএল
জুনায়েদ সিদ্দিকী। ফাইল ছবি

জুনায়েদ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছেন ২০১২ সালে। ঘরোয়া ক্রিকেটে এখনো খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। কিন্তু টি-টোয়েন্টি থেকে কি একটু আগেভাগেই বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছিল জুনায়েদকে? অন্তত পরিসংখ্যান তো সেটাই বলছে।

Advertisment

মাত্র ৭টা আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলে জুনায়েদ সবমিলিয়ে রান করেছেন ১৫৯, গড়টাও মন্দ নয়, ২৩ ছুঁইছুঁই। সবচেয়ে নজরকাড়া দিক হচ্ছে তার স্ট্রাইকরেট, ১৪৭ ছাঁড়ানো! টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে স্ট্রাইকরেট, আর সেই স্ট্রাইকরেটেই যেন এভারেস্ট পার করে ফেলেছেন তিনি। ১৫০ এর আশেপাশে স্ট্রাইকরেট তো বর্তমান বাংলাদেশ দলের কারোরও নেই।

২টা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলেছিলেন জুনায়েদ, ২০০৭ আর ২০০৯ সালে। প্রথমবারে অভিষেক ম্যাচে নেমেই প্রায় ১৪৫ স্ট্রাইকরেটে খেলেছিলেন ৭১ রানের দারুণ একটা ইনিংস, যেটা এখনো পর্যন্ত আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তার সর্বোচ্চ ইনিংস হয়ে আছে। ২০০৯ এর বিশ্বকাপে ম্যাচ খেলেছিলেন ২টা, মোট রান ৫৪ হলেও চোখ কপালে তুলে দিচ্ছে স্ট্রাইকরেট, যা ২০০!

ম্যাচসেরার পুরস্কার হাতে জুনায়েদ সিদ্ধিকী।
টি-২০ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুর্দান্ত ফিফটিতে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছিলেন জুনায়েদ সিদ্দিকী।

তবে জুনায়েদ যে নিয়মিত সুযোগ পেয়ে গেছেন সেটা বলার কোনো সুযোগ নেই। ২০০৭ থেকে ২০১২ পর্যন্ত ৫ বছরে ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছেন মোটে ৭টা। আবার সেই ৭ ম্যাচের ক্যারিয়ারে অসাধারণ স্ট্রাইকরেট থাকার পরেও অবহেলিত হয়েছেন তিনি, বাদও পড়েছেন দল থেকে। আর ২০১২ সালের পর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে আর একটা ম্যাচও খেলেননি জুনায়েদ।

তার ব্যাটিং, ম্যাচ খেলা, পারফরম্যান্স, পরিসংখ্যান- সবকিছুই এখন থেকে প্রায় ১০ বা তারও বেশি বছর আগের ঘটনা। বর্তমানের মত এতোটা ধুমধাড়াক্কা ক্রিকেট বা চার ছক্কার ফুলঝুরিও সেসময় ছিল না। তারপরেও জুনায়েদের পারফরম্যান্স ছিল অবশ্যই প্রশংসনীয়, আরো কিছু ম্যাচে তিনি সুযোগটা অন্তত পেতেই পারতেন।

দলে নেওয়ার পর সামান্য কয়েকটা ম্যাচ খেলার সুযোগ দিয়ে তারপর ছুড়ে ফেলা- দেশের ক্রিকেটে এই রীতিনীতি যেন অনিবার্য। বর্তমানে না হোক, অন্তত জুনায়েদের সময়টাতে আরেকটু সুযোগ তিনি পেতেই পারতেন। সুযোগ পেলে হয়ত আরো একটু সমৃদ্ধও হতে পারত তার ক্যারিয়ার। কে জানে? হতেও তো পারত!

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।