ডমিঙ্গোকে ‘বলির পাঁঠা’ না বানানোর আহ্বান সুজনের

বাংলাদেশ দলের সাম্প্রতিক ব্যর্থতার জন্য প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে দোষারোপ করা উচিৎ নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিসিবি পরিচালক ও সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজন। ভালো ফলাফলের জন্য তিনিও ডমিঙ্গোকে সময় দেওয়ার পক্ষে।

ডমিঙ্গোকে 'বলির পাঠা' না বানানোর আহ্বান সুজনের
সাম্প্রতিক ব্যর্থতায় হুমকির মুখে রাসেল ডমিঙ্গোর চাকরি। ফাইল ছবি

২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর তৎকালীন প্রধান কোচ স্টিভ রোডসকে চাকরীচ্যুত করে নিয়োগ দেওয়া হয় দক্ষিণ আফ্রিকার ডমিঙ্গোকে। তবে তার অধীনে দলের উল্লেখযোগ্য সাফল্য নেই, উল্টো আছে লজ্জাজনক কিছু ব্যর্থতা। সাম্প্রতিক সময়ে দল যখন সাফল্য খরায় ভুগছে, তখন অনেকেই ডমিঙ্গোর বদলি খোঁজাকে সমর্থন মনে করছেন।

Advertisment

এমনকি খোদ বোর্ড সভাপতিও কোচের চাকরির ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চয়তার কথা জানিয়েছিলেন। তবে সুজন মনে করেন, ডমিঙ্গোর দোষ নেই। ভালো করার জন্য তিনি নিজের সাধ্য অনুযায়ী চেষ্টা করছেন বলেও জানান সদ্য সমাপ্ত লঙ্কা সফরে টাইগারদের এই টিম লিডার।

ক্রিকবাজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সুজন বলেন, ‘ডমিঙ্গোকে বলির পাঠা বানানো উচিৎ নয়। কোনো ভালো কিংবা খারাপ ফলাফলের জন্য কোচকে দায় দেওয়া যায় না। সে একটি বড় দলেরও কোচ ছিল। চেষ্টায় কোনো কমতি ছিল না, ভাগ্যটা পক্ষে ছিল না। এরকম হয়। তার ব্যাপারে কিছু বোলার সময় এখনও হয়নি। মাত্র একটা সিরিজ ওর সাথে কাজ করলাম, বলতে পারি যে ও চেষ্টা করছে।’

সুজন মনে করছেন, বাংলাদেশের ক্রিকেটীয় সংস্কৃতিতে মানিয়ে নিতে কিছুটা সময় লাগছে ডমিঙ্গোর। তিনি জানান, ‘সে তো দক্ষিণ আফ্রিকায় কাজ করছে। বাংলাদেশে একটু ভিন্নভাবে কাজ হয়। ড্রেসিংরুমে আমাদের ছেলেদের তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে মনে করিয়ে দিতে হয়। শীর্ষ ক্রিকেটীয় দেশগুলোতে এমন হয় না। ছেলেদেরও আমি এই বার্তা দিয়েছি।’

‘আমাদের মাথায় রাখতে হবে, সাফল্য বা ব্যর্থতার জন্য শুধু কোচরা দায়ী না কারণ দিনশেষে ক্রিকেটাররাই মাঠে খেলে। কোচকে দোষারোপ করে লাভ নেই, আমাদের একটি পরিকল্পনা সাজাতে হবে এবং সেটা বাস্তবায়িত করতে হবে তাহলেই উন্নতি হবে।’– বলেন সুজন।