নড়াইলের অভিষেকের পেসে কুপোকাত ভারত, সম্ভাবনা পেস অলরাউন্ডার পাওয়ার

অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে নিজেদের প্রথম শিরোপা জয় করে বাংলাদেশ রবিবার। টানটান উত্তেজনার ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে ১৭৭ রান করে ভারত। টার্গেট তাড়া করতে নেমে ভালো শুরু করলেও মাঝে লাগাতার উইকেট হারাতে থাকে বাংলাদেশ যুবারা। তবে শেষ পর্যন্ত আকবর আলী, পারভেজ হোসেন ইমন ও রকিবুল হাসানের দৃঢ়তায় বাংলাদেশ ৩ উইকেটে জয় লাভ করে।

নড়াইলের অভিষেকের পেসে কুপোকাত ভারত, সম্ভাবনা পেস অলরাউন্ডার পাওয়ার
ছবি : আইসিসি

 

Advertisment

বাংলাদেশ দলের হয়ে শুরুতে বোলিংয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করেন অভিষেক দাস। বাংলাদেশের সেরা অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার জেলা নড়াইলের ছেলে অভিষেক দাস। বিশ্বকাপে স্কোয়াডে থাকলেও বেশি খেলার সুযোগ পাননি একাদশে অভিষেক। দলের নিয়মিত পেসার মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীর ইনজুরির কারনে অবশেষে সুযোগ পান পাকিস্তানের বিপক্ষে শেষ গ্রুপ ম্যাচে। বৃষ্টির কারনে সেই ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় বোলিংয়ের সুযোগ হয়ে উঠেনি অভিষেক দাসের।

এরপর কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিতে প্রতিপক্ষ বিবেচনায় অভিষেকের বদলে স্পিনার মুরাদ জায়গা পায়। কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালে একাদশে না থাকলেও জাতীয় সংগীতের সময় অভিষেকের উপস্থিতি টেলিভিশনে সকলের নজর কাড়তো। স্কোয়াডের মাঝে সবচাইতে বেশি আবেগ নিয়ে জাতীয় সংগীত গাইতে যাদের দেখা যেতো তাদের মাঝে অন্যতম একজন ছিলেন অভিষেক। অবশেষে স্বপ্নের ফাইনালে ভারতের ব্যাটসম্যানদের কথা বিবেচনায় বাড়তি পেসার প্রয়োজন হওয়ায় সুযোগ আসে অভিষেকের।

ফাইনালে সুযোগ পেয়ে হতাশ করেননি অভিষেক। মূলত পেস বোলিংয়ের জন্য পরিচিত হলেও ব্যাটিংয়ে কোনভাবে পিছিয়ে নন অভিষেক। তার অনূর্ধ্ব ১৯ ব্যাটিং গড় ৪২। ভারতের বিপক্ষে শুরুতে সাকিব ও শরিফুলের পেস ঝড়ের পর আক্রমণে আসেন অভিষেক। আক্রমণে এসেই উইকেট তুলে নেন অভিষেক ও দলকে এনে দেন প্রথম ব্রেক থ্রু। এরপর শেষের দিকেও আরো দুইটি উইকেট পান অভিষেক। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন মোট ফাইনালে। ফাইনালে জয়ের পর মাশরাফির অভিনন্দন বার্তায় মাশরাফি তাকে বিশেষ অভিনন্দন জানান তার জেলার ছোট ভাই হিসেবে।

কাকতালীয় ব্যাপার হচ্ছে অভিষেক তার অনূর্ধ্ব ১৯ ক্যারিয়ারে দুইবার সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছেন। ২ বারই ছিলো ভারতের বিপক্ষে। বোলিং ছাড়াও অভিষেক লোয়ার অর্ডারে একজন ভালো ব্যাটসম্যানও বটে। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫ম ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ ৪৮ নটআউট এখন পর্যন্ত যুব ওয়ানডেতে তার সেরা ইনিংস। তার যুব ওয়ানডে ক্যারিয়ারে বোলিং এভারেজ ২৮ ও ব্যাটিং এভারেজ ৪২।

নড়াইলের অভিষেকের পেসে কুপোকাত ভারত, সম্ভাবনা পেস অলরাউন্ডার পাওয়ার
অভিষেকের উদযাপন, ছবি : আইসিসি

 

ব্যাটিংয়ে যদি অভিষেক আরো একটু কাজ করেন তাহলে পুরোদস্তুর একজন অলরাউন্ডার হতে পারবেন এমন আশা সকল ভক্ত সমর্থকদের। বাংলাদেশ দলে একজন পেস অলরাউন্ডারের অনেক অভাব। স্পিন অলরাউন্ডারের ছড়াছড়ি থাকলেও পেস বোলিং অলরাউন্ডারের কথা বললে বর্তমানে সাইফুদ্দিন ছাড়া অন্য কারো নাম সামনে আসেনা। তার ক্রিকেটিং আইডল ও তারই জেলার বড় ভাই মাশরাফি পেস বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও চেষ্টা করতেন বড় শট খেলার। মাশরাফির জেলা থেকেই যদি ভবিষ্যতে একজন পেস অলরাউন্ডার উঠে আসতে পারে বাংলাদেশের জন্য তাহলে খোদ মাশরাফির চাইতে খুশি অন্য কেউ হবেননা। অনূর্ধ্ব ১৯ এর মতো অভিষেক তার সাফল্য বজায় রেখে ভবিষ্যতে জাতীয় দলে আসতে পারবে এটাই সকলের প্রত্যাশা।