“ফিটনেস টেস্টে সবার স্কোর লক্ষ্যের চেয়ে বেশি হয়েছে”

0
1759

জাতীয় ক্রিকেট লিগ (এনসিএল) শুরুর আগে ক্রিকেটারদের বাধ্যতামূলক ফিটনেস পরীক্ষা দেওয়া শুরু করেছেন ক্রিকেটাররা। ক্রিকেটারদের ফিটনেস স্কোর দেখে সন্তুষ্ট জাতীয় ক্রিকেট দলের নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক।

জিম্বাবুয়েতে সাফল্য পাওয়ার টোটকা দিলেন রাজ্জাক
আব্দুর রাজ্জাক

আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে শুরু হবে এনসিএল। টুর্নামেন্টটিকে সামনে রেখে শনিবার শুরু হয়েছে ফিটনেস টেস্ট। এবার আগেই থেকে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন ক্রিকেটাররা। ফলে আগের তুলনায় তাদের স্কোর এবার বেশ ভালো এসেছে। বিগত আসরগুলোতে ফিটনেস টেস্টে পাশ করতে না পারার ফলে ক্রিকেটারদের টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পড়তে দেখা গেছে। তবে এবার সেই ঘটনা ঘটবে না বলেই আশা রাজ্জাকের।

Advertisment

শনিবার শুরু হওয়া ইয়োইয়ো টেস্টে নাসির হোসেন পেয়েছেন ১৭। চমক দেখিয়েছেন আবু হায়দার রনি। তিনি পেয়েছেন ১৯.৩ নম্বর। এছাড়া ফিটনেস টেস্ট উতরে গেছেন নাঈম ইসলাম ও শুভাশীষ রায়।

রাজ্জাক বলেন, “সবার মোটামুটি খুব ভালো অবস্থা। এটা ভালো হওয়ার কারণ, এবার প্রত্যেক দল অনেকদিন ফিটনেস ক্যাম্প করেছে। এবার কেউ খারাপ করেনি। লক্ষ্যের চেয়ে ওপরে আছে সবার স্কোর। এটা ইতিবাচক দিক। আগে দেখা যেত অনেকে ভালো করছে না বা ফিটনেস ভালো নয় দেখে বাদ পড়ছে। আমার মনে হয় না এবার ওরকম কোনো পরিস্থিতিতে পড়তে হবে।”

ফিটনেস টেস্টে সবার স্কোর লক্ষ্যের চেয়ে বেশি হয়েছে (2)

এই নির্বাচকের মতে ফিটনেস পরীক্ষা দেওয়ার পদ্ধতিটি খুবই ভালো পদ্ধতি। তিনি মনে করেন, খেলোয়াড়দের সবসময়ই ফিট হয়ে তারপর মাঠে নামা উচিত। তাছাড়া দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট থেকেই যেহেতু জাতীয় দলের টেস্ট খেলোয়াড়রা উঠে আসেন তাই অবশ্যই ফিটনেস পরীক্ষার ওপর জোর দেওয়া উচিত।

রাজ্জাকের ভাষ্যমতে, “আমি নিজে যখন দিয়েছি, কখনই বলিনি কাজটা ভালো না। আমি সবসময় উৎসাহ দিয়েছি। আমার কাছে মনে হয়েছে এটা করা উচিত। টেস্টের পরই ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের স্থান। ফিট হয়েই সবার মাঠে নামা উচিত। দিনশেষে এখান থেকেই টেস্ট খেলোয়াড় তৈরি হবে। এখনও প্রাথমিক ধাপ, এরপর প্র্যাকটিস করবে এরপর ম্যাচে নামবে। কিন্তু ফিট থাকলে খেলার সময় আর চিন্তা করতে হবে না।”

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পরেই পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। ফলে এনসিএল শেষ না করেই জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের যোগ দিতে জাতীয় দলে। রাজ্জাক জানান, জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা, অন্তত প্রথম তিন রাউন্ডে জাতীয় দলে খেলোয়াড়রা থাকবেন। তবে প্রথম চার রাউন্ড পর্যন্তও তাদের খেলার কথা, যদিও এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই নির্ধারিত হয়নি।

গত মার্চ মাসে এনসিএল শুরু হলেও করোনার আক্রমণে মাঝপথে বন্ধ হয়ে যায়। পরে সেই আসরই বাতিল করা হয়। এনসিএলও যে ক্রিকেটারদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আবারও স্মরণ করিয়ে দিলেন রাজ্জাক। তিনি বলেন,

“আমি তো গতবারই আশা করেছিলাম পুরো খেলা হবে। খেলা হলেই ভালো। সেক্ষেত্রে দল বানাতে, খেলোয়াড় তৈরি হতে সুবিধা হয় এবং খেলোয়াড়রা ভালো থাকে। খেলোয়াড়রা এত দিন না খেলে থাকতে অভ্যস্ত না। ওদের আর্থিক ব্যাপারও আছে। না খেললে তো পারিশ্রমিক পাবে না।”

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।