বিশ্বকাপ টিম প্রিভিউ : বাংলাদেশ

0
3221

আগামী ১৭ অক্টোবর, আসরের উদ্বোধনী দিনে শুরু হবে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ মিশন। দর্শক, সমর্থক, সংগঠক কিংবা ক্রীড়া গণমাধ্যম- সব মহলে আশা আর প্রত্যাশা জাগিয়ে সপ্তম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে গিয়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপ শুরুর আগে জেনে নেওয়া যাক বাংলাদেশ দলের শক্তিমত্তা, সামর্থ্য, সম্ভাবনা, স্কোয়াডসহ বিস্তারিত।

বিশ্বকাপের জন্য বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণা
১৭ অক্টোবর বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ। ফাইল ছবি

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে বাংলাদেশের পথচলা কখনই মসৃণ ছিল না। যদিও এই ফরম্যাটের আবির্ভাবের সময় ভাবা হত, বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরাই হয়ত এখানে বেশি দাপট দেখাবেন। সময়ের সাথে সাথে সেই ধারণা মিলিয়ে গেছে। সমৃদ্ধ বোলিং ইউনিট নিয়ে টাইগাররা বিশ্বকাপ খেলতে গেলেও দুর্ভাবনার জায়গা ব্যাটিং ইউনিট।

Advertisment

অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মত দলের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ ও সিরিজ জয়ের উচ্ছ্বাস নিয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে পা রেখেছে বাংলাদেশ। তবে ঘরের মাঠে যে ধরনের উইকেটে বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডকে পর্যুদস্ত করেছে, সেই উইকেটকে টি-টোয়েন্টির বিচারে মানানসই বলার সুযোগ নেই। অজি ও কিউইদের বিপক্ষে টাইগারদের সাফল্য দেখে অনেকেই তাই শঙ্কা জানিয়েছিলেন- বাংলাদেশের যথার্থ বিশ্বকাপ প্রস্তুতি হল তো!

যদিও বিশ্বকাপ কন্ডিশনের সাথে মানিয়ে নিতে একটু আগেভাগেই ওমান যাত্রা করেছিল টিম বাংলাদেশ। ওমান ‘এ’ দলের বিপক্ষে অনানুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচে পেয়েছিল ৬০ রানের বিশাল জয়। সেই ম্যাচকে ঘিরে বেশি উচ্ছ্বাসের সুযোগ রাখেনি আনুষ্ঠানিক দুই প্রস্তুতি ম্যাচ। শ্রীলঙ্কার কাছে ৪ উইকেটআয়ারল্যান্ডের কাছে ৩৩ রানের পরাজয়ে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি নিয়ে ফের প্রশ্ন উঠেছে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলার সূচি
বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ফাইল ছবি : বিডিক্রিকটাইম

মুস্তাফিজুর রহমান, সাকিব আল হাসান, শেখ মেহেদী হাসানদের নিয়ে গড়া বোলিং লাইনআপ অবশ্য স্বপ্ন দেখাতে পারে বাংলাদেশকে। ওমান ও আরব আমিরাতের পিচ একটু স্পিন সহায়ক হয়ে উঠলে সাকিব-মেহেদীরা তো বটেই, পেসার মুস্তাফিজুর রহমানও প্রতিপক্ষের কাছে ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারেন। তবে ব্যাটিং ইউনিট নিয়ে শঙ্কা উড়িয়ে দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ঘরের মাঠে ব্যাটসম্যানদের অফ-ফর্ম খুব একটা দুশ্চিন্তা না জাগালেও আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচের দুই পরাজয় নতুন করে প্রশ্ন তুলছে ব্যাটারদের সামর্থ্য নিয়ে।

মূল পর্ব অর্থাৎ সুপার টুয়েলভে উঠতে হলে বাংলাদেশকে খেলতে হবে প্রথম পর্বে, যেখানে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক ওমান, স্কটল্যান্ড ও পাপুয়া নিউগিনি। স্কটল্যান্ডের খেলোয়াড়রা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বেশ অভিজ্ঞ। ‘কিছু না হারানো’র স্বস্তি নিয়ে টাইগারদের ওপর তাই ছড়ি ঘোরাতে পারে দলটি। স্বাগতিক দেশ বিবেচনায় ওমানও ছেড়ে কথা বলবে না। যে পাপুয়া নিউগিনিকে একটু হালকাভাবে নেওয়ার সুযোগ আছে, তারা অনেক আগেই বাংলাদেশের সাথে সাক্ষাতের জন্য মুখিয়ে থাকার কথা জানিয়ে রেখেছে। সবচেয়ে বড় কথা, দলটির সাথে কখনই কোনো ফরম্যাটে খেলেনি বাংলাদেশ। পাপুয়া নিউগিনি তাই বাংলাদেশের কাছে সম্পূর্ণ অচেনা।

বাংলাদেশের উদযাপন প্রচার নিয়ে অস্ট্রেলিয়া টিমে উত্তাপ!
বিশ্বকাপের আগে টানা তিনটি সিরিজ জিতেছে টাইগাররা। ফাইল ছবি

শক্তিমত্তা : বিশ্বকাপে বাংলাদেশের শক্তিমত্তা নিয়ে আলোচনা করতে গেলে সবার প্রথমে আসবে বোলিং লাইনআপ। ওমান ও আরব আমিরাতে ঘরের মাঠের মত কন্ডিশন পেলে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স হয়ে উঠবে ধারাল। স্পিন-পেসের মিলিত কম্বিনেশনে অতীতের যেকোনো বৈশ্বিক আসরের চেয়ে বেশি দৃঢ় বোলিং আক্রমণ নিয়ে এবার বিশ্বকাপ খেলবে বাংলাদেশ। সিনিয়র ক্রিকেটারদের উপস্থিতি দ্বিধাহীনভাবে শক্তি ও সাহস যোগাবে দলকে। আরব আমিরাতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) খেলা সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমানের অভিজ্ঞতাও বড় সুবিধা দিতে পারে দলকে।

দুর্ভাবনা : বোলিং ইউনিটকে যদি ধরা হয় বাংলাদেশের শক্তির জায়গা, তাহলে দুর্ভাবনা হতে পারে ব্যাটিং ইউনিট। সর্বশেষ দুই সিরিজে (অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে) ব্যাটসম্যানরা রানের দেখা পাননি। বিশ্বকাপে যে ধরনের ব্যাটিং প্রয়োজন, সেই ব্যাটিং দল দেখাতে পারেনি আনুষ্ঠানিক দুই প্রস্তুতি ম্যাচেও। টপ অর্ডার, বিশেষত ওপেনাররা নেই ফর্মে। মুশফিকুর রহিমের মত অভিজ্ঞ তারকাও রানের জন্য ধুঁকছেন। বিশ্বকাপের স্পোর্টিং উইকেটে ব্যাটসম্যানরা জ্বলে উঠতে না পারলে বোলারদের জন্য সাফল্য এনে দেওয়া কঠিন হবে।

সম্ভাবনা : এবার বাংলাদেশ খেলবে তারুণ্যনির্ভর দল নিয়ে। স্কোয়াডের এক ঝাঁক ক্রিকেটারের নেই বৈশ্বিক আসরে খেলার অভিজ্ঞতা, কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণ করেই তারা জায়গা করে নিয়েছেন টি-টোয়েন্টি দলে। আফিফ হোসেন ধ্রুব, শরিফুল ইসলাম, শেখ মেহেদী হাসান, নাসুম আহমেদ, শামীম হোসেন পাটোয়ারির মত ক্রিকেটাররা যেকোনো ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার সামর্থ্য রাখেন, তা ইতোমধ্যে প্রমাণ করেছেন। দারুণ ছন্দে থাকা নুরুল হাসান সোহানও হয়ে উঠতে পারেন বাংলাদেশের বড় হাতিয়ার। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সাফল্যের ছন্দ ধরে রাখতে পারলে বাংলাদেশ উতরাতে পারবে প্রথম পর্ব। সেক্ষেত্রে সুপার টুয়েলভে ভারত-পাকিস্তানের মত দলের দুশ্চিন্তার কারণ হতে পারে টাইগাররা।

শ্রীলঙ্কাকে '১৪৮' রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিল বাংলাদেশ
বিশ্বকাপের আগে দুশ্চিন্তা জাগাচ্ছে ব্যাটসম্যানদের ফর্ম। ছবি : গেটি ইমেজ

বিতর্ক : বিশ্বকাপের মত বড় মঞ্চের স্কোয়াড নিয়ে টুকটাক বিতর্ক অস্বাভাবিক নয়। বাংলাদেশের স্কোয়াড ঘোষণার পর অল্পবিস্তর সমালোচনা হয়েছে দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবালের অনুপস্থিতি নিয়ে। যদিও তামিম স্বেচ্ছায় বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বলে দাবি করেছেন বাংলাদেশের স্কোয়াডে নেই কোনো সহ-অধিনায়ক। একইভাবে নেই লেগ স্পিনার। সমর্থকদের বড় অংশ এ নিয়ে প্রকাশ করেছেন অসন্তোষ। বিশ্বকাপ স্কোয়াডের সাথে স্ট্যান্ডবাই ক্রিকেটার হিসেবে দেশ ছেড়েছিলেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও রুবেল হোসেন। রুবেলকে দলের সাথে রাখা হলেও বিপ্লবকে ফেরত পাঠানো হয়েছে দেশে। অন্তত নেটে বিপ্লবের লেগ স্পিনের বিপক্ষে খেলে বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে অনেকখানি সহায়তা পাওয়ার সুযোগ ছিল বাংলাদেশের- এমন দাবি অনেকের।

স্কোয়াড : মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), নাঈম শেখ, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আফিফ হোসেন ধ্রুব, সৌম্য সরকার, শেখ মেহেদী হাসান, নুরুল হাসান সোহান (উইকেটরক্ষক), নাসুম আহমেদ, শামীম হোসেন পাটোয়ারি।

সূচি : প্রথম পর্বে বাংলাদেশ খেলবে স্কটল্যান্ড, ওমান ও পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে। এর মধ্যে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৭ অক্টোবর, ওমানের বিপক্ষে ১৯ অক্টোবর ও পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে ২১ অক্টোবর মাঠে নামবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।

তারিখ – ম্যাচ – ভেন্যু – সময় (বাংলাদেশ সময় অনুযায়ী)

১৭ অক্টোবর – বাংলাদেশ বনাম স্কটল্যান্ড – ওমান – রাত ৮টা
১৯ অক্টোবর – বাংলাদেশ বনাম ওমান – ওমান – রাত ৮টা
২১ অক্টোবর – বাংলাদেশ বনাম পাপুয়া নিউগিনি – ওমান – বিকাল ৪টা

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।