বোলিংয়ে অসুবিধা নেই তাসকিনের, সেরে উঠছেন মুস্তাফিজ

মহাসমারোহে চলছে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ, তবে সুপার লিগে খেলা হচ্ছে না জাতীয় দলের দুই পেসার মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদের। বাংলাদেশ দলের নির্ভরযোগ্য দুই পেসারই পড়েছেন চোটে। তবে তাদের কারও চোটই দীর্ঘসময় মাঠের বাইরে ছিটকে ফেলার মত নয়।

বোলিংয়ে অসুবিধা নেই তাসকিনের, সেরে উঠছেন মুস্তাফিজ

Advertisment

তাসকিনের চোট তুলনামূলক গুরুতরই বলা চলে। বাঁ হাতে বলের আঘাত পেয়ে দুই আঙুলের মাঝখানে লেগেছে সেলাই। তবে তাসকিন বল করেন ডান হাতে, তাই এই চোট তার মাঠে ফেরাকে খুব বেশি বিলম্বিত করবে না।

তাসকিনের চোটের সর্বশেষ অবস্থা জানিয়ে বিসিবি চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, ‘তাসকিনের হাতে বলের একটা আঘাতে নন-বোলিং হ্যান্ডের প্রথম ও দ্বিতীয় আঙুলের মাঝখানে ছিঁড়ে যায়। এটা ওর আগেই ছিল, নতুন করে আবার হয়েছে। কসমেটিক সার্জন দ্বারা যথাযথভাবে তার সার্জারি করা হয়েছে। যেহেতু নন-বোলিং আর্ম, ওর বোলিংয়ে সমস্যা হওয়ার কোনো কারণ দেখছি না। ২-১ দিন বিশ্রাম নেওয়ার পর ওর বোলিং আবার নতুন করে শুরু করতে পারবে।’

মুস্তাফিজের চোট ছিল কোমরে। কোমরে ব্যথা অনুভব করায় ডিপিএলে খেলা শুরু করলেও পরে চালিয়ে যাননি। সুপার লিগে অবশ্য তাকে দেখা যেতে পারে। সবকিছু নির্ভর করছে কতদিনে পুরোপুরি সেরে ওঠেন তার ওপর। তবে আপাতত তাকে নিয়ে কোনো দুশ্চিন্তা নেই, তা স্পষ্ট দেবাশীষের বক্তব্যে, ‘মুস্তাফিজ কোমরের ব্যথার কথা জানিয়েছিল আমাদের। যেহেতু আমাদের হাতে সময় কম, খুব তাড়াতাড়ি ওর ল ব্যাকে স্ক্যান করিয়েছি। স্ক্যানে খারাপ কোনো ইঞ্জুরির লক্ষণ দেখিনি। ২-১ দিনের পরিচর্যায় ব্যথাটা অনেক কমে গেছে।’

তাসকিন ও মুস্তাফিজকে জিম্বাবুয়ে সফরে পাওয়ার বিষয়ে কোনো সংশয় না থাকলেও এখনও অনিশ্চিত হাসান মাহমুদ ও আল-আমিন হোসেনের ফেরা। আল-আমিনকে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট শুরু করতে আরও মাস দুয়েক অপেক্ষা করতে হতে পারে। হাসানের চোট ৭০ শতাংশের মত সেরেছে বলে জানান দেবাশীষ।