ভিত্তিহীন সংবাদে বিপাকে ভারতীয় গণমাধ্যম

গত রোববার হুট করে একটি খবর প্রকাশিত হয়, যা খুব অবাক করেছিল ক্রিকেটপাড়ার সংশ্লিষ্ট সবাইকে। ভারতীয় বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে উক্ত খবরে বলা হয়, আসন্ন ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট ম্যাচ আয়োজনে অসম্মতি জানিয়েছে হায়দরাবাদ। এজন্য হায়দরাবাদ ক্রিকেট এসোসিয়েশন (এইচসিএ) এর অর্থাভাবকে কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

তবে খবর প্রকাশের একদিনের মাথায়ই ভারতীয় গণমাধ্যমের এমন দাবী নাকচ করে দিয়েছেন আয়োজক এইচসিএ-এর সেক্রেটারি কে. জন মনোজ, আর এতে সমালোচনার মুখে পড়েছে ঢালাওভাবে ঐ খবর প্রচার করা গণমাধ্যমগুলো। ভারতের মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র টেস্ট ম্যাচের আয়োজন থেকে তাঁদের সরে আসার কোনো সুযোগ নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ম্যাচটিকে সামনে রেখে ঠিকঠাকভাবেই এগোচ্ছে তাদের প্রস্তুতি।

তবে কিছুটা আর্থিক সহায়তা চেয়ে ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিসিসিআই-এর কাছে এইচসিএ-এর পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছিল বলে জানান মনোজ, যা হয়েছিল দেশটির সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই, ‘আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য টেস্ট ম্যাচ আয়োজন থেকে আমাদের সরে আসার কোনো উপায় নেই। আমি কিছুদিন আগে বিসিসিআইকে চিঠি দিয়েছিলাম ফান্ড চেয়ে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে এই চিঠি দেওয়া হয়।’

Also Read - ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলার প্রস্তাব পেয়েছে বাংলাদেশ


প্রস্তুতির ব্যাপারে হায়দরাবাদের যে কমতি নেই তা স্পষ্ট মনজের কথায়, ‘আমাদের টেস্ট ম্যাচের প্রস্তুতি ঠিকভাবে এগোচ্ছে। সোমবার নির্বাহী কমিটির বৈঠক হবে এ ব্যাপারে। ওইদিনই  বিসিসিআই কর্মকর্তা পি. আর. বিশ্বনাথ হায়দরাবাদে আসবেন। এইচসিএ কিউরেটরের সঙ্গে পিচের প্রস্তুতি নিয়ে কথা বলবেন।’ ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের দাবী উড়িয়ে দিয়ে বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘যতদূর জানি এইচসিএ টেস্ট ম্যাচ আয়োজনে এগোচ্ছে। যাই হোক না কেন বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট আমরা আয়োজন করব।’