Scores

মুখে বলা নয়, কাজে প্রমাণ করতে চান হাসান মাহমুদ

প্রথমবারের মত বিপিএল খেলতে নেমেছিলেন পেসার হাসান মাহমুদ। ঢাকা প্লাটুনের জার্সিতে চিনিয়েছেন নিজের জাত। ১৩ ম্যাচে ১০ উইকেট পেলেও গতিময় বোলিংয়ের সাথে লাইন-লেংথে আলো কড়েছেন ২০ বছর বয়সী এই পেসার। এতেই সুযোগ পেয়েছেন বাংলাদেশ দলে।

৩ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য বাংলাদেশ দলের হয়ে পাকিস্তান সফর করবেন হাসান মাহমুদ। প্রথমবারের মত টাইগার শিবিরে ডাক পাওয়া পর নিজের অনুভূতি জানিয়ে কথা বলেছেন বিডিক্রিকটাইমের সাথে। পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো হাসান মাহমুদের সাক্ষাতকারটি।

Also Read - বাংলাদেশকে উড়ন্ত সূচনা এনে দিয়ে ফিরলেন তানজিদ


বিডিক্রিকটাইম: হঠাৎ জাতীয় দলে সুযোগ। প্রথমবারের মত বাংলাদেশ দলে ডাক পাওয়ার পর নিজের এবং পরিবারের অনুভূতি কেমন?

হাসান মাহমুদ: আমার অনুভূতি বলতে আমি খুবই খুশি আলহামদুলিল্লাহ্‌। আর পরিবারের যারা আছে তারা অনেক খুশি, যে আমি জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছি। তারা অনেক খুশি সবাই। পরিবারের পাশাপাশি আত্মীয়স্বজন যারা আছে তারাও অনেক খুশি।

বিডিক্রিকটাইম: এভাবে বাংলাদেশ দলে সুযোগ পেয়ে যাবেন, ভেবেছিলেন কখনো?

হাসান মাহমুদ: এইটা অনেক উত্তেজনাকর একটা ব্যাপার যে প্রথমবারের মত বিপিএল খেললাম। এই টুর্নামেন্ট শেষ হওয়ার পর পরেই যে জাতীয় দলে সুযোগ পাব এইটা কখনোই ভাবিনি। আমি যেটা মনি করি, যে খেলাতেই থাকি না কেন সেটা ফোকাস করার চেষ্টা করি সবসময়। অগ্রিম কিছু চিন্তা করি না যে কি হবে, কোথায় যাব।

বিডিক্রিকটাইম: প্রিয় ক্রিকেটার, বা যাদের অনুপ্রেরণায় আজকের হাসান মাহমুদ হয়ে উঠা?

হাসান মাহমুদ: আমার অনুপ্রেরণা অনেকেই আছে যারা ১৪০ কি:মি: গতির উপর বল করে। যেমন; মিচেল স্টার্ক বলেন, প্যাট ক্যামিন্স বলেন, মার্ক উড বলেন বা কাগিসো রাবাদা। আর স্পেশাল বলতে শোয়েব আখতার, যার বোলিং দেখে আমার বেড়ে উঠা।

বিডিক্রিকটাইম: পাকিস্তানে যাচ্ছেন সেখানে নিশ্চয় শোয়েব আখতারের সাথে দেখা হবে। সুযোগ পেলে শোয়েবের কাছ থেকে কোনো টোটকা নিতে চান?

হাসান মাহমুদ: অবশ্যই ইচ্ছে থাকবে। পাকিস্তান যাচ্ছি, সেখানে গিয়ে শোয়েবের সাথে দেখা করার ইচ্ছে থাকবে। হ্যা, ওর কাছ থেকে কিছু শেখার ইচ্ছে আছে।

বিডিক্রিকটাইম: ১৩ ম্যাচে ১০ উইকেট। অ্যাভারেজটা একটু বেশি। ৯ এর উপর ইকোনমি, এটাও কি একটু বেশি মনে হচ্ছে না?

হাসান মাহমুদ: দেখেন বিপিএলের সময়টা চলে গেছে, এখান থেকে যা শিখলাম তা ভালোই অভিজ্ঞতা হলো। এই অভিজ্ঞতাটা কাজে লাগিয়ে সামনে অগ্রসর হবো ইনশাআল্লাহ্‌। খেলার পরিস্থিতিভেদে ইকোনমিক কমবেশি হতেই পারে।

বিডিক্রিকটাইম: আপনার মূল শক্তির জায়গা গতি। এবারের বিপিএলে কয়েকটা বল করেছেন ১৪২ এর উপরে, এই গতি কি আরো বাড়াতে চান?

হাসান মাহমুদ: মাত্রতো শুরু করলাম। আমার ট্রেনিং বাকি, অনেক কিছুই বাকি আছে এখনো। এটা বাড়ানো সম্ভব যদি আমি পুরোদস্তুর ট্রেনিং করি সাথে ভাল খাবার খাই।

বিডিক্রিকটাইম: বাংলাদেশের হয়ে ৩ ফরম্যাটে প্রতিনিধিত্ব করার স্বপ্ন দেখেন?

হাসান মাহমুদ: যদি আমাকে সব ফরম্যাটে খেলানোর চিন্তা করে তবে আমি…। অবশ্যই আমি মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকবো। এখন তো ধরেই সবকিছু খেলা যায় না। আস্তে আস্তে শুরু করতে হবে। তবে সুযোগ পেলে অভিজ্ঞতা নেওয়া ভালো।

বিডিক্রিকটাইম: স্টার্ক, রাবাদা, কটরেলের মত পেস বোলাররা সাধারণত আগ্রাসী মনোভাবের হয়। সেদিক দিয়ে আপনি নিশ্চুপ প্রায়। কখনো কি মনে হয় উদযাপনে বৈচিত্র্য আনা প্রয়োজন?

হাসান মাহমুদ: আমি আসলে উদযাপনে ততটা মনোযোগ দিই না। উইকেট পাওয়ার পর আমার চিন্তা থাকে এই ব্যাটসম্যানের মুখোমুখি হলে পরের বার তাকে কিভাবে আউট করবো।

বিডিক্রিকটাইম: পাকিস্তান সিরিজের নিজের লক্ষ্য ঠিক করেছেন?

হাসান মাহমুদ: পাকিস্তান সিরিজে লক্ষ্য বলতে নিজের যেই দায়িত্ব থাকবে ওই দায়িত্ব ঠিকঠাক পালন করা। কিভাবে বোলিংয়ে ভালো করা যায়। ফিল্ডিং থাকবে, ফিল্ডিংয়ে ভালো করার চেষ্টা করবো। আপাতত ধরাবাঁধা কোনো লক্ষ্য নেই যে আমাকে এতো উইকেট পেতে হবে। আমার লক্ষ্য শুধু ভালো বোলিং করা। উইকেট না পেয়েও অনেকে ভালো বোলিং করে।

বিডিক্রিকটাইম: ক্যারিয়ার শেষে নিজেকে কোথায় দেখতে চান?

হাসান মাহমুদ: ক্যারিয়ার শেষে বাংলাদেশের একজন যোগ্য ক্রিকেটার হিসেবে দেখতে চাই। সবকিছু তো আসলে মুখে বলা যায় না, কাজে প্রমাণ করতে হয়।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

স্থগিত করা হলো বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজ

ভেন্যু পরিবর্তনের সুযোগ দেখছেন না বিসিবি সভাপতি

পিসিবির কোর্টে বল ঠেলে দিল বিসিবি

বাংলাদেশের সফর নিয়ে পিসিবির ধোঁয়াশা

এবার পাকিস্তান সফর নিয়ে শঙ্কা