Scores

যুবাদের বিশ্বকাপ জেতাতে চান নাভিদ

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিশ্বকাপ জেতার সক্ষমতা আছে বলে মনে করেন দলের নবনিযুক্ত প্রধান কোচ নাভিদ নাওয়াজ। শ্রীলঙ্কান এই কোচের অধীনে রোববার অনুশীলন শুরু করেছেন যুব ক্রিকেটাররা। মিরপুর একাডেমি মাঠে সেই অনুশীলন চলাকালে দল নিয়ে বেশ আশাবাদী কণ্ঠ শোনান ৪৪ বছর বয়সী এই কোচ।

যুবাদের-বিশ্বকাপ-জেতাতে-চান-নাভিদ
নাভিদ নাওয়াজ। ছবি: সংগৃহীত

সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে নাভিদ জানান বাংলাদেশ যুব দলকে নিয়ে তার লক্ষ্যের কথা। আর সেই লক্ষ্য হচ্ছে বিশ্বকাপ জয়। নাভিদের মতে, যুব বিশ্বকাপ জেতার মত শক্তিমত্তা বাংলাদেশের রয়েছে।

তিনি বলেন-

Also Read - সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে বৃষ্টির জয়


অবশ্যই আমি বাংলাদেশকে বিশ্বকাপ জেতাতে চাইবাংলাদেশের যে শক্তিমত্তা রয়েছে তাদের পক্ষে বিশ্বকাপ জেতা সম্ভব বলে আমি মনে করিছেলেদের যথেষ্ট স্কিল রয়েছেতবে সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ হল তাদেরকে কন্ডিশনের জন্য প্রস্তুত করা।’

বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের অন্যতম বড় শত্রু এই কন্ডিশন। উপমহাদেশের পরিবেশ ব্যতীত ভিন্ন কোথাও ভালো করা বাংলাদেশের জন্য একটু কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। আগামী যুব বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে দক্ষিণ আফ্রিকায়। আর তাই ঐ পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়ানোর প্রশ্নও রয়েছে।

নাভিদ বলেন, সর্বশেষ যখন তারা নিউজিল্যান্ডে খেলেছিল, সেটি বাংলাদেশের থেকে একেবারেই আলাদা ছিলআর এবার আমরা দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলবোএখানকার কন্ডিশনও কিন্তু বেশ ভিন্ন, সুতরাং তাদেরকে এই কন্ডিশনের জন্য কিভাবে প্রস্তুত করবো সেটাই এখন বড় বিষয়।’

নাভিদ দায়িত্ব নেওয়ার পর খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের বিপক্ষে তিনটি একদিনের ম্যাচ খেলেছে যুবারা। সেই খেলা দেখে খেলোয়াড়দের সম্পর্কে ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করেছেন নাভিদ। তবে খুলনায় যারা ছিলেন না, তাদের সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেতে উদগ্রীব হয়ে আছেন সাইফ-নাঈম-আফফিদের কোচ।

তিনি বলেন, খুলনায় ছেলেদের খেলা দেখেছিতারা কয়েকটি ম্যাচ খেলেছেএকটি ধারণা পেয়েছিওখানে ১৫ জন ছেলে ছিলবাকিদের সম্পর্কে ধারণা পাওয়ার অপেক্ষায় আছি টিম কম্বিনেশন কিরূপ হবে সেটি জানতেআমার পরিকল্পনা হবে ২০২০ সালের বিশ্বকাপকে সামনে রেখেএর আগে অনেক কাজ করতে হবে টেকনিক্যালি এবং শারীরিকভাবে ওদের ওই টুর্নামেন্টের জন্য প্রস্তুত করতে।’

২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ দেড় বছরেরও বেশি সময় পাচ্ছে হাতে। এই সময় সুষ্ঠুভাবে কাজে লাগিয়ে দলকে আরও শক্তিশালী ও ভারসাম্যপূর্ণ করতে চান নাভিদ, আমাদের এখন পর্যন্ত হাতে যে সময় আছে সেটা কাজে লাগাতে হবে। সেটি নিজেদের ভালো করে প্রস্তুত করার জন্য।’

বাংলাদেশের মত প্রতিভাবান ও প্রতিশ্রুতিশীল দলের দায়িত্ব নিতে পেরে খুশি হওয়ারই কথা শ্রীলঙ্কান সাবেক ক্রিকেটারের। সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে সেই উচ্ছ্বাস ছড়িয়ে দিলেন নির্দ্বিধায়। নাভিদ নাওয়াজ বলেন, আমি আসলেই অনেক রোমাঞ্চিত এই ছেলেদের দায়িত্ব নিতে পেরেআমি মনে করি এটি অনেক বড় যাত্রা এবং তারা আগামীতে আসলেই অনেক ভালো করবে।’

একবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দেশ শ্রীলঙ্কার সাবেক এই ক্রিকেটার জাতীয় দলের জার্সি গায়ে খেলেছেন একটি টেস্ট, ২০০২ সালের যে টেস্ট ম্যাচে শ্রীলঙ্কার প্রতিপক্ষ ছিল বাংলাদেশ। খেলেছেন তিনটি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচও। পেশাদার এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ঘরোয়া ক্রিকেটে অবশ্য খেলেছেন দাপটের সাথেই। ২০০৫ সালে খেলোয়াড়ি জীবন শেষ করে কোচিং পেশায় মনোনিবেশ করেন তিনি।

টেস্ট খেলুড়ে কোনো দেশের যুব দলে কাজ করা এটিই অবশ্য প্রথম হচ্ছে না তার জন্য। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পান তিনি, যে দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘ ৬ বছর। বয়সভিত্তিক দল সম্পর্কে তার ক্রিকেটীয় জ্ঞান নিয়ে তাই নেই কোনো সংশয়। এর আগে দেশটির নারী ক্রিকেট দলের উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেছেন। একটি দলকে সামলে রাখার অভিজ্ঞতা তাই ভালোই রয়েছে তার।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে নাভিদ নাওয়াজের কাঁধে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব অর্পণ করে দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিসিবি। কোচিং স্টাফ সমৃদ্ধ করার ধারাবাহিকতায় শীঘ্রই তার সঙ্গী হবেন আরও ক’জন বিদেশি।

আরও পড়ুন: নতুন রেকর্ড গড়ে সবার উপরে ফখর

 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

বরিশালে হবে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ

শেষ ওভারে গিয়ে হেরে গেল বাংলাদেশ

জয়ের জন্য ওভারপ্রতি সাড়ে সাত রান প্রয়োজন কিউইদের

দুই সেট ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে পাঠিয়ে ম্যাচে ফিরল বাংলাদেশ

শুরুতেই শরীফুলের সাফল্য, আঁটসাঁট বোলিংয়ে চাপে নিউজিল্যান্ড