রাজশাহীর সাফল্যে সেলফির অবদান

 

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট মানেই বিনোদন। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত এই সংস্করণে চার-ছক্বার ডামাডোলে মাঠে সব সময়ই বিরাজ করে উৎসব উৎসব একটি ভাব। তবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ- বিপিএলে গতকাল দেখা গেল বিনোদনটি দেখা গেল একটু ভিন্নভাবে। একের পর এক উইকেট নিয়ে মাঠে স্যামিদের চলতে থাকে সেলফির অভিনয়ে উৎসব।
“আমরা চাই একটা দল হিসেবে খেলতে। এই রকম উদযাপনগুলো দলকে একতাবদ্ধ করে, ঐক্যের আবহ তৈরি করে। যেটির হাত ধরে ধরা দেয় সাফল্য। এই টুর্নামেন্টে আমরা এক সময় অনেক পিছিয়ে পড়েছিলাম, কিন্তু টিম স্পিরিট ছিল বলেই ঘুরে দাঁড়াতে পেরেছি।” -ড্যারেন স্যামি।
f626f7b834bf759d23ab0bf1a5af258c-Samy
বিপিএলের প্রথমার্ধে ছয় ম্যাচের দুটিতে জয় চারটিতে পরাজয়। রাজশাহী কিংসের ভবিষ্যত্টা ভক্তদের কাছে যেন দিনের আলোর মতোই পরিষ্কার ছিল। কিন্তু বিপিএলের দ্বিতীয়ার্ধেই পট পরিবর্তন হয়ে যায় পুরোপুরি! পরের ছয় ম্যাচে চারটা জয়! মোট ছয় জয়ে ১২ পয়েন্ট সংগ্রহ করে রাজশাহী কিংস স্থান করে নেয় সেরা চারে। এর অর্থই হলো, কিংসদের সামনে দারুণ সুযোগ বিপিএলের নতুন কিং হওয়ার! সুযোগের সদ্ব্যবহারই করলেন ড্যারেন স্যামিরা। গতকাল এলিমিনেটর ম্যাচে চিটাগং ভাইকিংসকে উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে ৩ উইকেটে হারিয়ে ফাইনাল খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখল রাজশাহী কিংস।
এদিন একের পর এক উইকেটের মত উইলিয়ামস ও রাজশাহী মাতিয়েছে উদযাপনেও। উইলিয়মাসের ‘সেলফি’ তোলার চেনা উদযাপন তো ছিলই। সেটিকে নতুন মাত্রা দেন স্যামি। দলের সবাই মিলে কাল্পনিক ক্যামেরায় ছবি তোলা, আবার সবাই মিলে উইলিয়ামসের ছবি তোলা, ভিডিও করা… সব মিলিয়ে পারফরম্যান্স আর উদযাপনে রাজশাহী জুগিয়েছে দারুণ বিনোদন।

 

Advertisment

ম্যাচ শেষে হাসিমুখে স্যামি জানালেন এই উদযাপনের জন্ম রহস্য, “আমরা সবাই ছবি তুলতে পছন্দ করি। ছেলেদের ইনস্টাগ্রাম পাতায় গেলেই দেখতে পাবেন, সবসময়ই নানা পোজে ছবি আছেই। তো ক্রিকেটেও কেন নয়! ভালো খেললে উদযাপনটাও প্রাণখোলা হয়। ভেবে দেখুন, সেলফি তোলার সময় লোকে কতটা উৎফুল্ল থাকে! আমাদের ব্যাপারটিও তাই।”

ড্যারেন স্যামি আরও বলেন,  “আমরা চাই একটা দল হিসেবে খেলতে। এই রকম উদযাপনগুলো দলকে একতাবদ্ধ করে, ঐক্যের আবহ তৈরি করে। যেটির হাত ধরে ধরা দেয় সাফল্য। এই টুর্নামেন্টে আমরা এক সময় অনেক পিছিয়ে পড়েছিলাম, কিন্তু টিম স্পিরিট ছিল বলেই ঘুরে দাঁড়াতে পেরেছি।”

এছাড়া নিজেরে একটা পরিবারের মতন খেলছেন জানান তিনি, ” আমরা একটি নতুন দল, কিন্তু আপনি দলে নজর দিলে দেখবেন আমাদের একটি ভালো বোঝাপড়া আছে। আমরা গ্রুপ পর্বে চার নম্বরে শেষ করে মোটেও হতাশ ছিলামনা। কারন যখনি আমরা আমাদের চেয়ে পয়েন্টে এগিয়ে থাকা দলের বিরুদ্ধে খেলেছি, আমরা জয়ী হয়েছি। আমরা ফাইনালের লক্ষ্য ঠিক করেছি। আশা করছি আমরা এটা করে দেখাতে পারবো।

ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে আজ বিকেলে মাহমুদূল্লাহর খুলনার মুখোমুখি হবে স্যামির রাজশাহী কিংস।

 

  • মাকসুদুল হক, বিডিক্রিকটিম।