রেকর্ড গড়ে জিততে হবে বাংলাদেশকে

0
437

চট্টগ্রাম টেস্টে গতকাল (শনিবার) তৃতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে সবেমিলিয়ে স্কোরবোর্ডে ৩৭৪ রান জমা করেছিলো সফরকারী আফগানিস্তান, হাতে তখনো দুই উইকেট। আজ চতুর্থ দিনে অবশ্য খুব বেশিদূর যেতে পারেনি আফগানরা। এতেই টাইগারদের সামনে যে লক্ষ্যটা ছুড়ে দিয়েছে, তা টপকাতে হলে নিজেদের ইতিহাসে সেরা ক্রিকেটাই খেলতে হবে সাকিব আল হাসানের দলকে।

বাংলাদেশ দল

Advertisment

সাদা পোশাকের ক্রিকেটে দেখতে দেখতে প্রায় দুই যুগ কাটিয়ে দিলেও যুতসইভাবে এই ফরম্যাটকে এখনো আয়ত্ব করতে পারেনি বাংলাদেশ। ঘরের মাঠেও নবাগত আফগানিস্তানে কাছে রীতিমত নাকানিচুবানি অবস্থা। দুই দলের একমাত্র টেস্টের ভেন্যু চট্টগ্রামে থেমে থেমেই হচ্ছে বৃষ্টি। স্বাগতিক দর্শকদের জন্য এই টেস্টে যেন এটাই আর্শিবাদ স্বরূপ, শেষ অবধি যদি এই বৃষ্টিতেই মিলিয়ে যায় লজ্জা!

তবে ক্রিকেটকে অনেকেই বলে থাকেন ‘গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা’। আফগানিস্তান ছুঁড়ে দেওয়া ৩৯৮ রানে লক্ষ্য টপকাতে দেড় দিনেরও বেশি সময় পাচ্ছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা, বৃষ্টি বাগড়া না দিলে যা জয়ের জন্য যথেষ্ট। তবে সেই অসাধ্যকে সাধন করতে গেলে বাংলাদেশ দলকে গড়তে হবে রেকর্ড, নতুন করে লিখতে হবে ইতিহাস।

পাঁচ দিনের ক্রিকেটে চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ দলের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৪১৩ রান। তবে সে ম্যাচেও জয়ের স্বাদ পাওয়া হয়নি টাইগারদের। দশ বছর আগে মিরপুরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেই ম্যাচে ৫২১ রান তাড়া করতে নেমে হেরেছিল স্বাগতিক দল। ঘরের মাঠে রান তাড়ার রেকর্ডটা আশার পালে খুব বেশি হাওয়া দিবে না বাংলাদেশ দলকে। এর আগে ২০১৪ সালে ঢাকা টেস্টে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ১০১ রান টপকিয়ে জয়ের রেকর্ড আছে বাংলাদেশের।

যেই ভেন্যুতে ৩৯৮ রানের পাহাড় ডিঙ্গাতে হবে স্বাগতিকদের, সেখানকার রেকর্ডটাও মলিন একেবারে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করে সর্বোচ্চ ৩৩১ রান তুলতে পারলেও ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেই টেস্টে ৫১৩ রান তাড়া করতে নেমে হারতে হয়েছিলো বাংলাদেশকে।

তবে পরিসংখ্যান বিবেচনায় আনলে অবশ্য নিউজিল্যান্ড দলের থেকে সান্ত্বনা খুঁজে পেতে পারে স্বাগরিকরা। চট্টগ্রামে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩১৭ রান তাড়া করে জেতার সুখস্মৃতি আছে কিউইদের । এটিই বাংলাদেশের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে যেকোনো দলের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডও।

তাইতো আফগানিস্তনের বিপক্ষে জিততে হলে রীতিমত অসাধ্যকে সাধন করতে হবে বাংলাদেশ দলকে। শেষপর্যন্ত দেখার অপেক্ষায়, এমন রেকর্ড গড়ে জয় ছিনিয়ে আনতে পারবে কি সাকিব আল হাসানের দল!