Scores

ভিডিও: শরিফুলের তিন বলে রিয়াদের তিন ছক্কা

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে প্রথম দল হিসেবে ফাইনালে উঠেছে জেমকন খুলনা। প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে প্রতিপক্ষ গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে ৪৭ রানে হারিয়েছে মাশরাফি, সাকিব, রিয়াদের দল। ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মত ৫ উইকেট শিকার করেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। 

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে প্রথম দল হিসেবে ফাইনালে উঠেছে জেমকন খুলনা। প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে প্রতিপক্ষ গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামকে ৪৭ রানে হারিয়েছে মাশরাফি, সাকিব, রিয়াদের দল। ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মত ৫ উইকেট শিকার করেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।  সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) 'হোম অব ক্রিকেট' খ্যাত মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২১০ রানের পাহাড় দাঁড় করে খুলনা। দলের পক্ষে ৮০ রানের ঝলমলে এক ইনিংস খেলেন ওপেনার জহুরুল ইসলাম। ৫১ বলের মোকাবেলায় জহুরুল হাঁকান ৫টি চার ও ৪টি ছক্কা। তার বিদায়ের পর ঝড়ো ব্যাটিংয়ের ধারা অব্যাহত রাখেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও সাকিব আল হাসান। রিয়াদ মাত্র ৯ বলেই করেন ৩০ রান, ২টি চার ও ৩টি ছক্কার মাধ্যমে। ২টি করে চার-ছক্কা হাঁকানো সাকিব ১৫ বলে ২৮ রান করেন। ১৫ রান আসে আরিফুল হকের ব্যাট থেকে। ১২ ছক্কার ইনিংসে একটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজাও। চট্টগ্রামের পক্ষে মুস্তাফিজুর রহমান শিকার করেন ২টি উইকেট। জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে প্রথম ওভারে দারুণ শুরুর ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন লিটন দাস। তবে এই ওভারে নিজের প্রথম বল মোকাবেলা করতে গিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজার শিকারে পরিণত হন গোল্ডেন ডাকের তিক্ত অভিজ্ঞতা পাওয়া সৌম্য সরকার। লিটনও নিজের ইনিংস বড় করতে পারেননি। ১৩ বলে ২৬ রান করে তিনিও মাশরাফির শিকারে পরিণত হন। মোহাম্মদ মিঠুনকে নিয়ে উইকেটে সেট হওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছিলেন মাহমুদুল হাসান জয়। তবে ২৭ বলে ৩১ রান করে তিনিও মাশরাফির শিকার হন। এরপর লড়াই একাই চালিয়ে গেছেন চট্টগ্রামের অধিনায়ক। আসরে নিজের প্রথম অর্ধশতকের দেখা পাওয়ার একটু পর অবশ্য আউট হয়ে যান। ৩টি করে চার-ছক্কা হাঁকিয়ে ৩৫ বলে ৫৩ রান করেন মিঠুন। মাশরাফির বোলিং তোপে শেষদিকে আর কেউই জ্বলে উঠতে পারেননি। শামসুর রহমান ও মুস্তাফিজুর রহমানকেও সাজঘরে ফেরান 'নড়াইল এক্সপ্রেস'। ১৯.৪ ওভারে চট্টগ্রাম অলআউট হয় ১৬৩ রানে। মাশরাফির পাঁচ উইকেট শিকারের দিনে দুটি করে উইকেট শিকার করেন আরিফুল হক ও হাসান মাহমুদ। ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন মাশরাফি। সংক্ষিপ্ত স্কোর  টস : গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম জেমকন খুলনা : ২১০/৭ (২০ ওভার) জুহুরুল ৮০, রিয়াদ ৩০, সাকিব ২৮, ইমরুল ২৫ মুস্তাফিজ ৩১/২, মোসাদ্দেক ২৭/১ গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম : ১৬৩/১০ (১৯.৪ ওভার) মিঠুন ৫৩, জয় ৩১, লিটন ২৪ মাশরাফি ৩৫/৫, আরিফুল ২৬/২্, হাসান ৩৫/২ ফল : জেমকন খুলনা ৪৭ রানে জয়ী। বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২১০ রানের পাহাড় দাঁড় করে খুলনা। দলের পক্ষে ৮০ রানের ঝলমলে এক ইনিংস খেলেন ওপেনার জহুরুল ইসলাম।

Also Read - প্রত্যাবর্তন সহজ নয়, ফরম্যাটও আদর্শ নয় : মাশরাফি


৫১ বলের মোকাবেলায় জহুরুল হাঁকান ৫টি চার ও ৪টি ছক্কা। তার বিদায়ের পর ঝড়ো ব্যাটিংয়ের ধারা অব্যাহত রাখেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও সাকিব আল হাসান। রিয়াদ মাত্র ৯ বলেই করেন ৩০ রান, ২টি চার ও ৩টি ছক্কার মাধ্যমে। ২টি করে চার-ছক্কা হাঁকানো সাকিব ১৫ বলে ২৮ রান করেন। ১৫ রান আসে আরিফুল হকের ব্যাট থেকে।

১২ ছক্কার ইনিংসে একটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজাও। চট্টগ্রামের পক্ষে মুস্তাফিজুর রহমান শিকার করেন ২টি উইকেট।

 

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে প্রথম ওভারে দারুণ শুরুর ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন লিটন দাস। তবে এই ওভারে নিজের প্রথম বল মোকাবেলা করতে গিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজার শিকারে পরিণত হন গোল্ডেন ডাকের তিক্ত অভিজ্ঞতা পাওয়া সৌম্য সরকার। লিটনও নিজের ইনিংস বড় করতে পারেননি। ১৩ বলে ২৬ রান করে তিনিও মাশরাফির শিকারে পরিণত হন।

মোহাম্মদ মিঠুনকে নিয়ে উইকেটে সেট হওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছিলেন মাহমুদুল হাসান জয়। তবে ২৭ বলে ৩১ রান করে তিনিও মাশরাফির শিকার হন। এরপর লড়াই একাই চালিয়ে গেছেন চট্টগ্রামের অধিনায়ক। আসরে নিজের প্রথম অর্ধশতকের দেখা পাওয়ার একটু পর অবশ্য আউট হয়ে যান। ৩টি করে চার-ছক্কা হাঁকিয়ে ৩৫ বলে ৫৩ রান করেন মিঠুন। মাশরাফির বোলিং তোপে শেষদিকে আর কেউই জ্বলে উঠতে পারেননি। শামসুর রহমান ও মুস্তাফিজুর রহমানকেও সাজঘরে ফেরান ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’। ১৯.৪ ওভারে চট্টগ্রাম অলআউট হয় ১৬৩ রানে। মাশরাফির পাঁচ উইকেট শিকারের দিনে দুটি করে উইকেট শিকার করেন আরিফুল হক ও হাসান মাহমুদ। ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন মাশরাফি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

টস : গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম

জেমকন খুলনা : ২১০/৭ (২০ ওভার)
জুহুরুল ৮০, রিয়াদ ৩০, সাকিব ২৮, ইমরুল ২৫
মুস্তাফিজ ৩১/২, মোসাদ্দেক ২৭/১

ভিডিও:  শরিফুলের তিন বলে রিয়াদের তিন ছক্কা 

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম : ১৬৩/১০ (১৯.৪ ওভার)
মিঠুন ৫৩, জয় ৩১, লিটন ২৪
মাশরাফি ৩৫/৫, আরিফুল ২৬/২্, হাসান ৩৫/২

ফল : জেমকন খুলনা ৪৭ রানে জয়ী।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

Related Articles

বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের ‘সেরা একাদশ’

ছোটদের ক্রিকেটের সাথে বড়দের ক্রিকেটের পার্থক্য বুঝেছেন শামীম

শামীমের যে গুণ দেখে মুগ্ধ খোদ সাকিব

সেরা ফিল্ডারের পুরস্কারের আশায় ছিলেন শামীম

শামীমকে ব্যাট উপহার দিলেন রিয়াদ