সিনিয়রদের সাথে খেলে আত্মবিশ্বাস পেয়েছেন যুবারা

0
867

আয়ারল্যান্ড উলভসের বিপক্ষে একমাত্র চারদিনের ম্যাচটি জয়ের পরে এক ম্যাচ হাতে রেখে ওয়ানডে সিরিজটিও জিতেছে বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। আইরিশদের ধবলধোলাই করতেও আত্মবিশ্বাসী স্বাগতিকরা। ব্যাটসম্যান তৌহিদ হৃদয় জানান, দেশের সিনিয়র তামিম-মুশফিকদের সাথে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলে আত্মবিশ্বাস যে আত্মবিশ্বাস পেয়েছেন তাই এখানে কাজে লাগছে।

সিনিয়রদের সাথে খেলে আত্মবিশ্বাস পেয়েছেন যুবারা
তৌহিদ হৃদয়

আইরিশ ব্যাটসম্যান রুহান প্রিটোরিয়াসের করোনাভাইরাসে আক্রান্তের খবর আসলে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচটি সেখানেই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। সেটি আর পরে খেলা হয়নি। পরের তিনটি ম্যাচেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচটিও জেতার আশা হৃদয়ের কণ্ঠে,’অবশ্যই এটা আমাদের আত্মবিশ্বাস দিবে। আপনি যদি দেখেন তিনটা ম্যাচ আমরা খুব ভালোভাবে জিতেছি। সেখান থেকে একটা অনুপ্রেরণা পাচ্ছি। আমি আশা করি যেহেতু আমরা সিরিজের প্রথম থেকে ভালো খেলছি পরবর্তী ম্যাচও ভালো করে হোয়াইটওয়াশ করব।’ 

Advertisment

আয়ারল্যান্ড উলভস নামে আইরিশরা বাংলাদেশ সফর করলেও দলটিতে একাধিক জাতীয় দলের খেলোয়াড় রয়েছেন। কিন্তু সেটা নিয়ে মোটেও ভাবছে না বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। বরং হৃদয় বলেন, ঘরোয়া দুইটি টুর্নামেন্ট বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ ও বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে বাংলাদেশের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে খেলে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের সাথে খেলার আত্মবিশ্বাস তারা পেয়েছেন।

হৃদয়ের ভাষ্যমতে, ‘ওদের সাতজন খেলোয়াড় আছেন জাতীয় দলের। আসলেই মাঠে যখন খেলি কে জাতীয় দলের, কে বড় ছোট এসব মাথায় আসে না। সবসময় আমরা নামি জেতার জন্য। যদিও এটা আত্মবিশ্বাস দিবে ওদের জাতীয় দলের খেলোয়াড় ছিল। তবে বলতে পারি ওদের চেয়ে বড় বড় খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলেছি। প্রেসিডেন্টস কাপ, বঙ্গবন্ধু কাপে আমাদের স্থানীয় অনেক বড় বড় সিনিয়র খেলোয়াড়রা ছিলেন। ওখান থেকেই আমরা আত্মবিশ্বাস পেয়েছি।’

চতুর্থ ম্যাচটিতে আয়ারল্যান্ড উলভস সংগ্রহ করে কেবল ১৮২ রান। ২ উইকেট হারিয়েই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। হৃদয় অপরাজিত ছিলেন ৮৮ রানে। আইরিশদের রান আরেকটু বেশি হলে হয়তো করতে পারতেন সেঞ্চুরি। কিন্তু সেসব নিয়ে না ভেবে নিজের গতিতে খেলে গিয়েছেন তিনি এবং ফলও পেয়েছেন।