সিরিজে সমতা ফেরাল শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দল

0
1342

টানা দুই ম্যাচ জিতে শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের বিপক্ষে সিরিজ জিতে নেওয়ার মিশনে ব্যর্থ হল স্বাগতিকরা। ঘরের মাঠ সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশ ‘এ’ দলকে ৬৭ রানে হারিয়ে তিন ম্যাচের একদিনের সিরিজে সমতা ফেরালো সফরকারীরা।

সিরিজ-জয়ের-মিশনে-মাঠে-নামছে-এ-দল

Advertisment

টস জিতে আগে ব্যাট করা শ্রীলঙ্কার দেওয়া ২৭৬ রানের লক্ষ্যমাত্রায় ব্যাট করতে নেমে ৪৪.৩ ওভারে ২০৮ রানে সবকয়টি উইকেট হারালে বাংলাদেশের বিপক্ষে এই জয়টি নিশ্চিত হয় সফরকারীদের।

বাংলাদেশের পক্ষে আল-আমিন জুনিয়র ৪৬, জাকির ৩২ ও সাইফ ২৮ রান করে স্কোরবোর্ডে যোগ করলেও দিন শেষে জয়ের তা পর্যাপ্ত ছিল না। প্রতিপক্ষ শিবিরের বোলারদের সামনে বাকি ব্যাটসম্যানরা নিজেদের ব্যাটিং প্রতীভা তুলে ধরতে না পারলে পরাজয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় স্বাগতিক বাংলাদেশ ‘এ’ দলকে।

লঙ্কান বোলারদের মধ্যে পুষ্পাকুমারা ও নিশান কুমারা সর্বাধিক ৩টি করে উইকেট লাভ করেন। বাকি বোলারদের মধ্যে প্রিয়াঞ্জন, শানাকা, জয়াসুরিয়া ও মাদুশাঙ্কা প্রত্যেকেই একটি করে উইকেট শিকার করেন।

এর আগে স্বাগতিক স্পিনারদের দাপুটের মুখে ১২৭ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারায় থাকা দলকে লড়াইয়ে ফেরান লঙ্কান কাপ্তান থিসারা পেরেরা। তার ৯ চার ও ৫ ছক্কায় করা ১১১ রানের ইনিংসে চড়ে ৪৯.৪ ওভারে অল-আউট হওয়ার আগে স্কোরবোর্ডে ২৭৫ রানের পুঁজি দাঁড় করায় সফরকারীরা। দলের পক্ষে থারাঙ্গার ব্যাট থেকে ৪৪ ও শেষ দিকে মাধুশাঙ্কার ব্যাট থেকে আসে গুরুত্বপূর্ণ ৩৬ রান।

বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে নাঈম হাসান ৪২ রান খরচায় সর্বাধিক ৩টি উইকেট লাভ করেন। এছাড়া ২টি করে উইকেট শিকার করেন সানজামুল ও শরিফুল। ১টি করে উইকেট নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেন আল-আমিন, খালেদ আহমেদ ও আফিফ হোসেন।

স্কোরকার্ড-

শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দল: ২৭৫/১০ (৪৯.৪ ওভার)
থিরিমান্নে ০(৫), থারাঙ্গা ৪৪(৫১), প্রিয়াঞ্জন ২১(২৯), শাম্মু ১০(১৬), শানাকা ১৭ (১৭), জয়াসুরিয়া ১২(২০), পেরেরা ১১১(৮৮), ভানুকা ২(৯),  পুষ্পকুমারা ৮(২০), পেইরিস ২(৮)*,  মাধুশঙ্কা ৩৬(৩৬); নাঈম ১০-০-৪২-৩, সানজামুল ৪-০-২১-২, শরিফুল ১০-০-৭৪-২।

বাংলাদেশ ‘এ’ দল: ২০৮/১০ (৪৪.৩ ওভার)
সৌম্য ১২ (৫), সাইফ ২৮(৩০), জাকির ৩২(৩৭) , মিঠুন ২৫ (৩০), আল-আমিন ৪৫ (৬৫), আরিফুল ২৭ (৫৩), আফিফ ১২(২৩), সানজামুল ২ (৫), নাইম হাসান ২(৮), শরিফুল ৯(১১), খালেদ ০(০)*; পুষ্পাকুমারা ৯.৩-১-৩২-৩, পেইরিস ১০-১-৩৯-৩।

ফলাফল: বাংলাদেশ ৬৭ রানের ব্যবধানে পরাজিত।


আরও পড়ুনঃ পরামর্শকের ভূমিকায় দেখা যেতে পারে ডি ভিলিয়ার্সকে