Scores

সেদিন জান দিয়ে খেলেছিলেন সাকিব-মুস্তাফিজরা

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ইতিহাসে সেই দিনটাও ছিল একটা অধ্যায়ের সমাপ্তি দিন। সেদিন মাশরাফি বিন মুর্তজার জন্য জান দিয়ে খেলেছিল দলের অভিজ্ঞ-নবীন সব ক্রিকেটারই। ৪ এপ্রিল হঠাৎ করেই আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়ে ৬ এপ্রিল বিদায় নেয়া ম্যাচে তাকে জয় উপহার দিয়েছিল সতীর্থ ক্রিকেটাররা।

 

উইন্ডিজ-সফরে-যাবেন-না-মাশরাফি
মাশরাফি বিন মুর্তজা।

 

Also Read - করোনা চিকিৎসায় অ্যাম্বুলেন্স দিলেন মাশরাফি


বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছিল ২০০৬ সালের ২৮ নভেম্বর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে সেই ম্যাচে ৪৩ রানের জয় পেয়েছিল শাহরিয়ার নাফীসের দল। বাংলাদেশের জয়ের নায়ক ছিলেন অলরাউন্ডার মাশরাফি।

আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে বাংলাদেশ সংগ্রহ করেছিল ১৬৬ রানে। যেখানে ব্যাটসম্যান মাশরাফির অবদান ছিল ২৬ বলে দুইটি করে চার ও ছয়ে ৩৬ রান। জিম্বাবুয়েকে ১২৩ রানে আটকে দিয়েছিল বাংলাদেশ। মাশরাফি ৪ ওভারে ২৯ রানের বিনিময়ে শিকার করেছিলেন একটি উইকেট।

এক দশক পরে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হিসাবে টস করতে নেমে মাশরাফি দিয়েছিলেন এক হৃদয়বিদারক ঘোষণা। ২০১৭ সালের ৪ এপ্রিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচের টস শেষে তিনি ঘোষণা দেন সিরিজের শেষ ম্যাচটিই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশের পক্ষে তার শেষ ম্যাচ হবে।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৬ উইকেটের বড় হার মেনেছিল বাংলাদেশ। টাইগারদের টি-টোয়েন্টি পরিসংখ্যান বরাবরই সুখকর নয়। কিন্তু সিরিজের শেষ ম্যাচটি যেন জান দিয়ে খেলেছিল সবাই। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে অধিনায়কের শেষ ম্যাচ বলে কথা! সেই ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়িয়ে দারুণ জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ।

কলম্বোয় সেই ম্যাচ আগে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৭৬ রান সংগ্রহ করেছিল বাংলাদেশ। মাশরাফি অবশ্য এদিনে ব্যাট হাতে কিছু করতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নিয়েছিলেন। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৮ রান (৩১ বল) করেছিলেন সাকিব আল হাসান।

শ্রীলঙ্কাকে ১৩১ রানে গুড়িয়ে দিয়ে ৪৫ রানের জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। শেষ বারের মতো টি-টোয়েন্টিতে বল হাতে নেমে একটি উইকেট শিকার করেছিলেন মাশরাফি। সাকিব তিনটি ও মুস্তাফিজুর রহমান শিকার করেছিলেন চারটি উইকেট। ম্যাচ সেরা খেলোয়াড় হয়েছিলেন সাকিব।

২০১৭ সালের ৬ এপ্রিলের সেই ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটের একটা অংশ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছিলেন মাশরাফি। হঠাৎ করেই বিদেশের মাটিতে তার এই অবসরের ঘোষণা যেন বেশির ভাগ ভক্ত-সমর্থক ও ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মেনে নিতে পারছিলেন না। সে অবসর নিয়ে বিতর্কও আছে বেশ। অবসরের পরে তার আবার ফেরা নিয়েও প্রস্তাব ও গুঞ্জন রটেছিল। কিন্তু নিজ সিদ্ধান্ত অটল মাশরাফি আর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে পা মাড়াননি।

বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট যুগ শুরুর থেকে দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ থাকা নড়াইল এক্সপ্রেস এই সংস্করণে খেলেছেন ৫৪টি ম্যাচ। যেখানে মাশরাফির ঝুলিতে আছে ৪২টি উইকেট। ব্যাট হাতে ৩৯টি ম্যাচে সুযোগ পেয়ে করেছেন ৩৭৭ রান।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ভারতের বিকল্প শ্রীলঙ্কা ও আরব আমিরাত

ইংল্যান্ড স্কোয়াডে স্টোকসের বদলি রবিনসন

ইমরান খান ক্রিকেটকে ধ্বংস করে দিয়েছে : জাভেদ মিয়াঁদাদ

আইসোলেশনে পাঠানো হলো হাফিজকে

ব্রডের ঘটনায় উঠে এল মাশরাফি আর বাংলাদেশের নাম