‘স্পোর্টিং উইকেটে ২০ উইকেট নেওয়ার বোলিং ইউনিট তৈরি হয়নি আমাদের’

0
1881

টেস্ট ম্যাচ জিততে হলে প্রতিপক্ষ দলের ২০ উইকেট নিতেই হবে। বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলের চোখে স্পোর্টিং উইকেটে এখনও ২০ উইকেট নেওয়ার মতো বোলিং ইউনিট তৈরি হয়নি বাংলাদেশের।

রাহী-এবাদতকে লাল বলে বেশি ম্যাচ খেলার পরামর্শ মুমিনুলের
এবাদত হোসেন ও আবু জায়েদ রাহী।

ঘরের মাঠে স্পিন দিয়ে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার মতো প্রতিপক্ষকে বধ করেছে বাংলাদেশ। তবে ঘরের মাঠে মন্থর উইকেটে খেলে স্পোর্টিং উইকেটে খেলার আত্মবিশ্বাসই হারিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা। বিশেষ করে টেস্ট ক্রিকেটে এখনও প্রত্যাশা অনুযায়ী সাফল্য পায়নি বাংলাদেশ।

Advertisment

সেটির সবচেয়ে বড় কারণ প্রতিপক্ষের ‘২০’ উইকেট নেওয়ার ক্ষমতা। আশরাফুলের মতে স্পোর্টিং উইকেটে প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট নেওয়ার মতো বোলিং ইউনিট এখনও হয়ে উঠেনি বাংলাদেশের।

“সত্যি বলতে স্পোর্টিং উইকেটে আমাদের এখনও বলে-কয়ে প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট নেওয়ার মতো বোলিং ইউনিট তৈরি হয়নি। ঘরের মাঠে কঠিন উইকেটে কিন্তু আমরা অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচ জিতেছি।”

বিশেষ করে বিদেশের মাটিতে অসহায় আত্মসমর্পণ করতে হয় বাংলাদেশের বোলারদের। স্পোর্টিং উইকেটের কথা প্রসঙ্গে আশরাফুল টেনে আনলেন এই বছরের চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচটির কথা।

“ক্লাসিকাল উইকেটে যখন খেলা হয় তখন আমাদের খেলোয়াড়দের জন্য কঠিন হয়ে যায়। আপনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচটার কথাই ধরুন। টেস্টের পঞ্চম দিনের খেলায় চতুর্থ ইনিংসে ৩৯৫ রান তাড়া করে ম্যাচ জিতেছে। আমি মনে করি এই জায়গাগুলোতে এখনও অনেক উন্নতির প্রয়োজন রয়েছে।”

তাইজুলের অগ্নিঝরা বোলিংয়ে বাংলাদেশের লিড
তৃতীয় দিন পাকিস্তানকে গুঁড়িয়ে দেন তাইজুল।

এই তো ঘরের মাঠে চট্টগ্রামে পাকিস্তানের কাছে প্রথম টেস্টে হেরেছে বাংলাদেশ। যেখানে দুই ইনিংসেই বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন-আপে ধ্বস নামিয়েছে পাকিস্তানের পেসাররা সেখানে উল্টো চিত্র বাংলাদেশের। দুই ইনিংসেই উইকেটবিহীন ছিলেন পেসার আবু জায়েদ রাহী

এবাদতকেও সফল বলা যায় না। তবে তাইজুল ও মেহেদী হাসান এবং এবাদতের প্রশংসা করলেন বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক আশরাফুল। তবে অন্যান্য বোলারদের চেয়ে দুই ইনিংসেই ধারাবাহিক ভালো বোলিং করেছেন তাইজুল। এই ইস্যুতে তিনি বলেন,

“আমাদের বোলাররা অনেক চেষ্টা করেছে বিশেষ করে তাইজুল, মিরাজ ও এবাদত দারুণ বোলিং করেছে। যদিও তাঁদের দেখে ক্লান্ত মনে হয়েছে। কারণ প্রথম ইনিংসে প্রচুর বোলিং করতে হয়েছে। তাঁরা খুব ভালো ব্যাটিং করেছে (পাকিস্তান)। এমন না যে আমাদের বোলাররা বাজে বোলিং করেছে। তাইজুল দ্বিতীয় ইনিংসেও ভালো বোলিং করেছে তবে তাঁরা এটির সঙ্গে খুব দ্রুতই মানিয়ে নিতে পেরেছে।”

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনের চ্যাটে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime Crickey সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।