হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাসায় সাকিব

গুরুতর ইনজুরি তাকে খেলতে দেয়নি এশিয়া কাপের শেষভাগে। খেলবেনই বা কীভাবে, দেশের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়ে আরেকটু হলেই যে নিজের হাত অকেজো করতে চলেছিলেন সাকিব আল হাসান! সেটি অনুধাবন করতে পেরে তড়িঘড়ি দেশে আসা, অতঃপর জরুরি অস্ত্রোপচার।

হাসপাতালে চিকিৎসারত আছেন সাকিব।
হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাসায় ফিরেছেন সাকিব। ফাইল ছবি

সেই অস্ত্রোপচারের পর হাসপাতালে কাটাতে হয়েছে অনেকগুলো ঘণ্টা। অবশেষে রোববার (৩০ জুলাই) হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাসায় ফিরেছেন সাকিব।

সুপার ফোরে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ জিতে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন পাকিস্তানের বিপক্ষে জিতে এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠার জন্য। ম্যাচের আগেই দুঃসংবাদ আসে বাংলাদেশ শিবিরে- আঙুলের ব্যথা আরও বেড়েছে সাকিবের। আঙুল ফুলে জমে গিয়েছিল পানি। সেই জন্য তড়িঘড়ি করে ম্যাচের দিনই দেশের উদ্দেশে উড়াল দেন সপরিবারে।

ইচ্ছে ছিল মেলবোর্নে আঙুলের অস্ত্রোপচার করাবেন। তবে ভিসা জটিলতার কারণে দেশের অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি হন। তবে দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য আরকটু অপেক্ষা করলে হয়তো আরও বড় বিপদের সম্মুখীন হতে পারটেন সাকিব। ২৬ সেপ্টেম্বর দেশে ফিরে আসার পরের দিনই অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি হন সাকিব, যেখানে জরুরি একটি অস্ত্রোপচার হয় তার।

Also Read - লিটন আউট ছিলেন নাকি নট আউট, জানেন না কোচও

সাকিবের ইনজুরি প্রসঙ্গে অ্যাপোলো হাসপাতালের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. এম আলী জানান, সাকিবের হাতে সিউডোমোনাস জাতীয় ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে ইনফেকশন হয়েছিল। অস্ত্রোপচার সফল হওয়ায় তাকে হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেওয়া হয়েছে। আগামী তিন সপ্তাহ তাকে অ্যান্টিবায়োটিক খেতে হবে, এতে ইনফেকশন সেরে উঠলে তাকে জায়গা নিতে হবে বিশেষজ্ঞ শল্যবিদের ছুরির নিচে।

তবে সাকিবের সেই আবশ্যক অস্ত্রোপচার কোথায় হবে সেটি এখনও নিশ্চিত করে কোনো পক্ষ থেকেই জানানো হয়নি।

ইনজুরি সারিয়ে পুরোপুরি ফিট হয়ে মাঠে ফিরতে প্রায় তিন মাস সময় লাগবে সাকিবের। এই দীর্ঘ সময়ে তাকে ছারাই প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট খেলতে হবে বাংলাদেশ জাতীয় দলকে। অসুস্থ সাকিবকে দেখতে রোববার তার শয্যাপাশে ছুটে যান দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

আরও পড়ুন: আছে মুগ্ধতা আবার আছে হতাশাও