Score

ক্যান্সারের ঔষধ খেয়ে ডোপ টেস্টে পজিটিভ শেহজাদ!

ডোপ টেস্টে পজিটিভ হয়ে শাস্তি পাওয়া পাকিস্তানি ক্রিকেটার আহমেদ শেহজাদ ভুল করে ক্যান্সারের ঔষধ খেয়ে ফেলেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি নিজেই। শাস্তি পাওয়ার কয়েকদিনের মাথায় উদ্ভট এই ব্যাখ্যা দিয়ে ক্রিকেট অঙ্গনে আলোচনার জন্ম দিয়েছেন তিনি।

ক্যান্সারের ঔষধ খেয়ে ডোপ টেস্টে পজিটিভ শেহজাদ!

শেহজাদের দাবি, তার মা ক্যান্সার সারাবার জন্য যে ঔষধ খান, খামখেয়ালি হয়ে তিনি সেটিই সেবন করে বসেছিলেন। আর এই কারণেই ডোপ টেস্টে পজিটিভ ফলাফল এসেছে তার, ক্রিকেটীয় দৃষ্টিকোণ থেকে যে ফলাফল যেকোনো ক্রিকেটারের জন্যই নেতিবাচক।

শেহজাদ জানান, চলতি বছরের ৩ মে ঘুম থেকে ওঠার পর মাথা ঘুরাচ্ছিল তার। এ সময় তিনি স্ত্রী সানা আহমেদের কাছে ‘গ্রাভিনেট’ নামক ঔষধ চান তিনি। স্ত্রী ভুল করে ঐ ঔষধের বদলে শেহজাদের মায়েস ক্যান্সারের ঔষধ এনে দেন। ভুল বুঝতে না পেরেই শেহজাদ ঐ ঔষধ সেবন করেন।

Also Read - জিম্বাবুয়ে সিরিজে দল নিয়ে চলবে পরীক্ষা

চার মাসের নিষেধাজ্ঞা পাওয়ার ঘোষণা যখন শেহজাদ পেয়েছেন, তখন তিন মাস পেরিয়েই গেছে। এরপরও নিজেকে দোষীর আসন থেকে বাঁচাতে আত্মপক্ষ সমর্থনের আশ্রয় নিয়েছেন এই ক্রিকেটার। তখনই তিনি দিয়েছেন এমন ব্যাখ্যা। প্রমাণ হিসেবে তিনি পিসিবির কাছে তার মায়ের ঔষধের ব্যবস্থাপত্রও পাঠিয়েছেন। শুধু তা-ই নয়; বর্তমান কোচ মিকি আর্থার, সাবেক পাকিস্তান অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক ও শোয়েব মালিকের রেফারেন্সে জমা দিয়েছেন চারিত্রিক সনদপত্রও!

গত ৫ অক্টোবর পিসিবির অ্যান্টি ডোপিং নিয়ম ভঙ্গ করা শেহজাদকে চার মাসের নিষেধাজ্ঞা প্রদান করে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। ডোপ টেস্টে পজিটিভ ক্রিকেটার হিসেবে শেহজাদের নাম প্রকাশ পেলে ধারণা করা হয়েছিল, বড় আকারের শাস্তির সম্মুখীন হতে চলেছেন তিনি। কিন্তু বোর্ডের বদান্যতায় তিনি ছাড় পাচ্ছেন মাত্র চার মাসেই। এর আগে গত ২০ মে পিসিবি থেকে দেওয়া হয় একটি বিশেষ বার্তা। সেই বার্তায় ছিল একজন তারকা ক্রিকেটারের ডোপ টেস্টে পজিটিভ হওয়ার খবর। ১০ জুলাই জানা যায়, শেহজাদই সেই ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন: জানুয়ারিতে হচ্ছে তো বিপিএল?

Related Articles

ছয় সপ্তাহ বাড়ল শেহজাদের শাস্তি

চার মাসের নিষেধাজ্ঞাই শেহজাদের সাজা

বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়লেন আকমল-শেহজাদ

শেহজাদই ডোপ টেস্টে পজিটিভ সেই ক্রিকেটার

ডোপ টেস্টে ধরা পড়েছেন শেহজাদ?