শিশুদের ক্রিকেটে বিপ্লবী উদ্যোগ

বয়সের বাধা কখনই টিকতে পারেনি ক্রিকেট প্রেমীদের কাছে। শিশু কিংবা বৃদ্ধ, তরুণ কিংবা যুবক প্রায় সববয়সী মানুষেরই এখন পছন্দের খেলা হয়ে উঠেছে ক্রিকেট। আর তা যদি হয় জাতীয় দলের খেলা, তবেতো কথাই নেই। সব কাযকর্ম ফেলে একটি বিশাল সংখ্যার মানুষ বসে পড়েন টিভির সামনে। কেউকেউতো আবার সরাসরি ছুটে যান খেলার মাঠেও।

সেরা খেলোয়াড়দের অসাধারণ নৈপুণ্যতায় দেশকে দেয়া এক একটি জয় দেখে তাদের মনেও ইচ্ছা জাগে যদি দেশের হয়ে খেলতে পারতাম! মন্ত্রমুগ্ধ করতে পারতাম হাজারো দর্শককে।! কিন্তু নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে প্রবল ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও মাঠে নেমে খেলা হয়ে ওঠে না।

Also Read - কবে নাগাদ ফিট হতে পারবেন সাকিব?

শিশুদের ক্ষেত্রে এমন প্রতিকুলতা রোধে এবার একটি বিপ্লবী উদ্যোগ নিয়েছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট। শনিবার দেশটির রাজধানী ওয়েলিংটনের পার্লামেন্ট লনে একটি প্রদর্শনীর পর তাদের “এজ এন্ড স্টেজ” জুনিয়র প্রোগ্রাম নামক এ কার্যক্রম দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়তে থাকে।

দেশটির প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড জানায়, মূলত এ কার্যক্রমটি রূপদান করা হয়েছে ক্রিকেটের সকল বিষয়কে ছোট ও শিশুদের উপযোগী করে তাদের কাছে খেলাটিকে আরও সহজ করে তোলার জন্য।  পিচের দৈর্ঘ্য হ্রাস, কম খেলোয়াড়, ছোট বাউন্ডারি সীমানা এবং তাদের শারীরিক গঠন অনুযায়ী ব্যাট, বল এবং খেলার সরঞ্জাম সরবরাহের মত নানা আয়োজনের মাধ্যমে এ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে।

আশা করা হচ্ছে, এটি শিশুদের ক্রিকেটে আরও প্রাণচ্ছলতা আনবে। এছাড়া এর মাধ্যমে বড়দের ক্রিকেটের সব ধরনের অভিজ্ঞতারই স্বাদ নিতে পারবে তারা।

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট বলেন, “গতবছর পরিচালিত পরীক্ষা-নিরিক্ষার ফল মাথায় রেখে এই গ্রীষ্মেই উদ্যোগটি দেশের সর্বস্তরে পৌছে দেয়া হবে। অস্ট্রেলিয়াতে এমনই একটি উদ্যোগ ছড়িয়ে পড়ার পর সেই কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারীদের দক্ষতা বৃদ্ধি হতে দেখা গেছে। ”

হোয়াইট আরও বলেন, “এই কার্যক্রম শিশুদের পাশাপাশি দরিদ্র বাবা-মা ও যত্নশীলদের কাছে ক্রিকেটকে আরও সহজবোধ্য করে তুলতে সহায়তা করবে।  এছাড়া এ উদ্যোগ শিশুদের কাছে ক্রিকেটকে আরও দ্রুত, প্রগতিশীল এবং উত্তেজনাপূর্ণ খেলা করে তুলবে। ফলে তারা আরও বেশি আনন্দ উপভোগ করতে পারবে যা ক্রিকেটের প্রতি শিশুদের আগ্রহের প্রধান কারণ হবে।  নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের লক্ষ্য ছিল ক্রিকেটকে সকল নিউজিল্যান্ডবাসীর খেলাতে রুপান্তর করা। “এজ এন্ড স্টেজ” কার্যক্রম সেই লক্ষ্য পূরণের একটি ধাপ। ”

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট কমিউনিটির জেনারেল ম্যানেজার অ্যাড্রিয়ান ডেল বলেন, “নিউজিল্যান্ডের অগ্রযাত্রার সাথে তাল মেলাতে এই খেলায়ও জরুরী ভিত্তিতে কিছু পরিবর্তনের প্রয়োজন ছিল। ”

তিনি আরও বলেন, “ক্রিকেটের নতুন এই ফরম্যাট এবং ডিজাইন শিশু খেলায়াড়দের জন্য ক্রিকেটকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলবে।  ক্রিকেটে এক জিনিস সব ক্ষেত্রে মানানসই হওয়ার দিন অনেকদিন আগেই ফুরিয়ে গেছে। এই কার্যক্রম শিশুদের পূর্ণাঙ্গরুপে ক্রিকেটে জড়িত হওয়া নিশ্চিত করবে এবং তারা কোথায়, কখন ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিভাবে ক্রিকেট খেলে সেবিষয়ে আরও নমনীয়তা আনবে। ”

Related Articles

জয়-পরাজয় নির্ধারণে দু’টি ইনিংসই ডিক্লেয়ার!

নিউজিল্যান্ডের নতুন কোচ গ্যারি স্টেড

দিবারাত্রি টেস্টের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিল বাংলাদেশ

বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফরের সূচি চূড়ান্ত

“মাহদি সুযোগ পেলে বাংলাদেশের হয়ে খেলবে”