শেষ ম্যাচে শতক হাঁকিয়ে ধরা দিলেন ‘চেনা তামিম’

0
1049

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের আইকন ক্রিকেটার হিসেবে দলের প্রতি তার দায়বদ্ধতা অন্য যেকোনো খেলোয়াড়ের চেয়ে বেশি। কিন্তু তামিম ইকবালের ব্যাট যেন চলতি বিপিএলে চওড়া হতেই পারছিল না। তবে তার সমর্থক ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের হতাশ করলে হবে? তামিম তাই জ্বলে উঠলেন ঠিক সময়েই; ফাইনাল ম্যাচেই!

শেষ ম্যাচেই ধরা দিলেন ‘চেনা তামিম’

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাওয়ে সিরিজ খেলতে তার বেশিরভাগ সতীর্থ দেশ ছেড়েছেন। বিপিএলের জন্য তিনি রয়ে গেছেন দেশে। গুরুত্বপূর্ণ সিরিজের প্রাক্বালে ভালো করে প্রস্তুতিও হয়ত হচ্ছিল না। কিংবা প্রস্তুতি হলেও ছিল না তাতে সন্তুষ্টি। তামিমের ব্যাটে যে রান নেই!

Advertisment

টস জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া সাকিব আল হাসান ভয় পাইয়ে দিয়েছিলেন শুরুতেই। কুয়াশা ভেজা মিরপুরে দ্বিতীয় ইনিংসে রান উঠবে সহজে- এটাই প্রত্যাশিত। টি-২০ ক্রিকেটেও ছোট ইনিংস হওয়ার যে দায় শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের ছিল সেটিই বা এড়ানো যায় কী করে! টস ভাগ্যে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের দলীয় সংগ্রহ কত হয়, সেটিই ছিল দেখার বিষয়।

তবে তামিম সেই ‘দেখার বিষয়’কে রুপান্তর করলেন ‘উপভোগের বিষয়’ এ! রুবেল হোসেন, শুভাগত হোম, কাজী অনিক কিংবা বন্ধু সাকিব আল হাসান- কেউই এদিন বাঁচতে পারেননি তামিমের তাণ্ডবের হাত থেকে। ওপেনিংয়ের সঙ্গী এভিন লুইস বিদায় নেওয়ার পর যে চাপ ভর করেছিল, সেই চাপ তামিম জয় করেই চলছিলেন এনামুল হক বিজয় ও শামসুর রহমান শুভর বিদায়ের পরও।

শেষ ম্যাচে এসে তামিমের এই তাণ্ডবে অবশেষে কোনো বাংলাদেশি ক্রিকেটারের শতক দেখেছে ষষ্ঠ বিপিএল। এর আগে চারটি সেঞ্চুরি হলেও সেই কীর্তি গড়া হয়নি কোনো বাংলাদেশির। তামিম এদিন মেটালেন সেই আক্ষেপ। এর আগে তিনটি ম্যাচে শূন্য রানে সাজঘরে ফেরা তামিম এদিন শতক তুলে নিলেন মাত্র ৫০ বলেই, যা তার টি-২০ ক্যারিয়ারের তৃতীয় শতক।

তামিমের সেঞ্চুরির দিনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স হাঁটছে বড় সংগ্রহের পথে। এই প্রতিবেদন লেখার সময় দলটির সংগ্রহ ৩ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রান, ১৬.৩ ওভার শেষে। ৮টি চার ও ৭টি ছক্কার সাহায্যে ৫০ বলে ১০৩ রান করে অপরাজিত আছেন তামিম।

তামিমের এই শতক টি-২০ ক্রিকেটে যেকোনো বাংলাদেশির দ্রুততম সেঞ্চুরি। এর আগেও অবশ্য দ্রুততম ছিলেন তিনিই। বিপিএলের ফাইনালেও এটি প্রথমবারের মত দেশি কোনো ক্রিকেটারের সেঞ্চুরি।